Main Menu

সোনাগাজীর মার্কেট গুলোতে জমে উঠেছে কেনাবেচা

সৈয়দ মনির অাহমদ>>

ঈদ যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই সোনাগাজীর মার্কেটগুলোতে কেনাবেচা জমে উঠছে। ঈদে ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে আগে থেকেই বিক্রেতারাও পণ্যের পসরা সাজিয়েছেন। অন্যান্য বছর রমজানের মাঝামাঝি সময় থেকে ঈদের কেনাকাটা জমলেও এবার দশ রমজানের পর থেকেই সোনাগাজীর বিভিন্ন বিপণি বিতানে ক্রেতাদের ভীড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

বরাবরের মতো এবারেও ছেলেদের চাহিদা অনুযায়ী পাইজামা-পাঞ্জাবি ও স্যান্ডেল, মেয়েদের জন্য বিভিন্ন ধরণের থ্রি পিস এবং শিশুদের রকমারি পোশাক পাওয়া যাচ্ছে। এবার ঈদে বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে বাজারে এসেছে মেয়েদের ‘বাজেরাও মাস্তানি’ জামা। ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মেয়েদের মধ্যে এবার বাজেরাও মাস্তানি পোশাকের চাহিদা বেশি। এখন পর্যন্ত এবারের ঈদের বেচাকেনা নিয়ে সন্তুষ্ট বিক্রেতারা। তবে দোকানদাররা জিনিসপত্রের দাম অনেক বেশি চাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ক্রেতারা।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে জিরোপয়েন্টস্থ শাহজাহান কমপ্লেক্স মার্কেটের লোকনাথ বস্ত্র বিতান,  নিপু বস্ত্র বিতান,  স্বপ্ন পুরি ফ্যাশন, লুকমি হাউজ,  স্টাইল ফ্যাশন,  রোকেয়া ফ্যাশন,  অহনা ফ্যাশন,  টার্গেট ফ্যাশন, অরন্য ফ্যাশন। মানিক মিয়া প্লাজার মেহেরবান ফ্যাশন , বধুসাজ,  তিশা ফ্যাশন, সিম্পা ফ্যাশন,  নিউ ফ্যাশন, সমাহার ফ্যাশন।  মারিয়া ফ্যাশন, অাল ইস্তেখার ফ্যাশন, সালসান ফ্যাশন, প্রিয়াংকা ফ্যাশন। রাকিব প্লাজা এসি মার্কেট, মেইন রোডস্থ নাছির ফ্যাশন, রজনীগন্ধা, সামি ফ্যাশন, মায়ের অাঁচল, সমাগম ফ্যাশন,  অালম ক্লথ স্টোর, খোন্দকার ফ্যাশন,  রিগ্যান ফ্যাশন গ্যালারী,  চয়েজ ফ্যাশন হাউজ,  অাজমীর ক্লথ স্টোর, অাবুল খায়ের ক্লথ, হিমেল ক্লথ স্টোর,  ভাই ভাই ফ্যাশন হাউজ গুলো ঘুরে ক্রেতাদের ভিড় দেখা গেছে।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, মেয়েদের বিভিন্ন ধরণের থ্রি পিস ১০০০ থেকে শুরু করে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। মেয়েদের হাল ফ্যাশনের ভারতীয় জামা বিক্রি হচ্ছে ৫হাজার  থেকে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। আর ৮০০ টাকা থেকে ৪০ হাজার টাকা পর্যন্ত শাড়ি বিক্রি হচ্ছে। আর ছেলেদের সুতি পাজামা-পাঞ্জাবি ১ হাজার ২০০ থেকে ৭ হাজার টাকা পর্যন্ত পাওয়া যাচ্ছে। শেরওয়ানি বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত।

নাছির ফ্যাশনের মালিক অাবু নাছির  বাংলার দর্পন কে জানান, এবার  রমজানের শুরু থেকেই ঈদের কেনাকাটার ক্রেতারা আসতে শুরু করেছেন। বেচাকেনা ভালই হচ্ছে। তবে ঈদের আগে ক্রেতাদের ভীড় আরও বাড়বে বলে আশা বিক্রেতাদের।

রাতে মার্কেট গুলোতে ব্যাপক অালোকসজ্জা করা হয়েছে।

Exif_JPEG_420

সোনাগাজীর জেন্টস অাইটেম সেরা প্রতিষ্টান রিগ্যান ফ্যাশনের মালিক অাকবর হোসেন বাংলার দর্পন কে বলেন, রমজানের ‘প্রথম সপ্তাহ থেকে এবার ঈদের কেনাকেটা পুরো দমে জমে উঠেছে। ঈদকে কেন্দ্র করে ব্যবসা ভালই হবে বলে মনে হচ্ছে।’

বিভিন্ন ধরণের টপস, ক্যাটটক, রাজিবা, জিপসি, ফ্লোর টাচ পোশাকের চাহিদাও মোটামুটি রয়েছে। ঈদ উপলক্ষে ক্রেতাদের হাল ফ্যাশনের কথা মাথায় রেখে দোকানে বিভিন্ন ধরণ ও দামের শাড়ি ও পাঞ্জাবির সমাহার রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বধু সাজের মালিক রাশেদ বাংলার দর্পন কে বলেন, সোনাগাজী তে বেশ কিছু ভাল মানের তৈরি পোশাক বিক্রির দোকান গড়ে উঠেছে। দোকানগুলোতে ক্রেতাদের রুচি এবং ফ্যাশনের কথা মাথায় রেখে বিক্রেতারা পণ্যের সমাহার রাখছেন।

রোকসানা অাক্তার নামের এক ক্রেতার সাথে কথা বলে জানা যায়, রমজানের শুরুতে পোশাকে অতিরিক্ত দাম হাকানো হচ্ছে, সেই কারনে অারো পরে কেনাকাটা করার সিদ্বান্ত নিয়েছেন তিনি।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি জানান, জিরোপয়েন্ট এলাকা সিসি ক্যামরার অাওতায় অাছে, এর বাহিরে পুলিশের টহল অব্যহত অাছে।  ট্রাপিক ব্যাবস্থা চালু থাকায় যানজট নেই।

সম্পাদনা/ এমএ।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *