Main Menu

বিমান বাহিনীর ৫০ বছর : ফেনীর সুলতান মাহমুদ বীরউত্তমকে সম্মান প্রদর্শন

সুমন পাটোয়ারী, দাগনভূঞা :
দাগনভূঁঞা উপজেলার দক্ষিন করিমপুরের এয়ার ভাইস মার্শাল (অবঃ) সুলতান মাহমুদ,
বীরউত্তম মুক্তিযুদ্ধে কিলোফ্লাইট অপারেশনের কমান্ডার ছিলেন। বাংলাদেশ
বিমান বাহিনী প্রতিষ্ঠায় এবং মুক্তিযুদ্ধে এই সাবেক বিমান
বাহিনী প্রধানের অনেক অবদান ছিল।

বিমান বাহিনীর ৫০ বছর পূর্তি
উদযাপন উপলক্ষে এই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে শ্রদ্ধা ও সম্মান প্রদর্শনের জন্য
তার নিজ বাড়ী দাগনভূঁঞা উপজেলার দক্ষিন করিমপুর এর উপর দিয়ে বিমান
বাহিনী তাদের একাধিক বিমান নিয়ে একটি ফ্লাই ফাস্ট পরিচালনা
করে। বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর মঙ্গলবার ২৮ সেপ্টেম্বর বিভিন্ন
কর্মসূচি পালনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠার ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন করেছে ।

মহান মুক্তিযুদ্ধের উত্তাল দিনগুলোতে জন্ম নেয়া বাংলাদেশ বিমান
বাহিনী এই দিনটিকে বিমান বাহিনী দিবস হিসেবে পালন করে
থাকে। উল্লেখ্য ১৯৭১ সালে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উদাত্ত আহ্বান সাড়া দিয়ে দেশের
আপামর জনতার সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে বিমানবাহিনীর অকুতোভয়
বীর মুক্তিযোদ্ধা পাকিস্তান বিমান বাহিনীর পক্ষ ত্যাগ করে মহান
মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। সম্মুখ যুদ্ধে অংশগ্রহণের পাশাপাশি
বিমানবাহিনীর কর্মকর্তাগণ সেক্টর কমান্ডারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ
দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

রক্ত ক্ষয় মহান মুক্তিযুদ্ধের সেই ভয়ঙ্কর দিনগুলোতে
যুদ্ধের গতি প্রকৃতি কে সম্পূর্ণ নিজেদের নিয়ন্তনে আনার জন্য
একটি স্বতন্ত বিমান বাহিনী গঠনের প্রয়োজনীয়তা তীব্রভাবে
অনুভূত হয়। আর এ লক্ষ্যে ১৯৭১ সালে ২৮ সেপ্টেম্বর ভারতীয় বিমান
বাহিনীর সহায়তায় একটি অটার বিমান, একটি ড্যাকোটা বিমান ও
একটি অ্যালুয়েট হেলিকপ্টার এবং ৫৭ জন বাঙালি বৈমানিক, কারিগরি
পেশার বিমান সেনা ও বেসামরিক বৈমানিকদের সমন্বয়ে ভারতের

নাগাল্যান্ডের ডিমাপুর এ কিলো ফ্লাইট নামে বাংলাদেশ বিমান
বাহিনী যাত্রা শুরু করে। মহান মুক্তিযুদ্ধে ৫০টি বিমান অভিযান সাফল্যের
সাথে পরিচালনার মাধ্যমে‌ ‍কিলো ফ্লাইট বিজয়কে ত্বরান্বিত করতে
অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছিল। ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন এর অংশ
হিসেবে বিমানবাহিনীর পিটি-৬ বিমানের মাধ্যমে
ফরিদপুর,নারায়ণগঞ্জ এবং ঢাকার আকাশে ৫০ এর একটি তৈরীর মাধ্যমে
চমৎকার উড্ডয়ন শৈলী প্রদর্শন করা হয়।

কিলো ফ্লাইট এর সদস্যদের
সাহসিকতাপূর্ণ অবদানকে সম্মান প্রদর্শন করতে বাংলাদেশ বিমান
বাহিনীর দক্ষ বৈমানিক মিগ-২৯ ও এফ-৭ জঙ্গী বিমানের মাধ্যমে
নারায়ণগঞ্জের গোদনাইল, চট্টগ্রামের ইস্টার্ন রিফাইনারি ফেনীর
দাগনভূঁঞা অবস্থিত কিলোফ্লাইটের অধিনায়ক এয়ার ভাইস মার্শাল
(অবঃ) সুলতান মাহমুদের বাড়ীসহ বিভিন্ন এলাকায় এরিয়েল ডিসপ্লে
প্রদর্শন করেন। এছাড়াও সি-১৩০ কে-৮ ডব্লিউ পিটি-৬ বিমান এবং
এমআই ১৭ ও ও বেল-২১২ হেলিকপ্টার এর সমন্বয়ে একটি মনমুগ্ধকর
ফ্লাইফাস্ট এর আযয়োজন করা হয়।

কর্মসূচির অংশ হিসেবে এদিন সন্ধ্যায় একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক
অনুষ্ঠানের আযয়োজন করা হয় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি এয়ার চিফ
মার্শাল শেখ আব্দুল হান্নান বিইউপি, এনএসডব্লিউসি,
এফএডব্লিউসি, পিএসসি তার বক্তব্যের শুরুতে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ
বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধার সাথে
স্মরণ করেন।

এছাড়াও তিনি বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট মতিউর
রহমান সহ মহান মুক্তিযুদ্ধে শাহাদাত বরণকারী সকল শহীদদের গভীর শ্রদ্ধার
সাথে স্মরণ করেন এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী বিমান
বাহিনীর সদস্যদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। অনুষ্ঠানের
মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে বাংলাদেশ বিমান বাহিনী প্রতিষ্ঠা উপর
নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র কিলো ফ্লাইট প্রদর্শনের মাধ্যমে মহান
স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলাদেশ বিমান বাহিনী সদস্যদের অবদান আত্মত্যাগ
স্বাধীনতার চেতনা এবং দেশপ্রেমের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত তুলে ধরা হয়। উক্ত
অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে কিলোবাইটের বীর যোদ্ধা সেনা ও
নৌবাহিনীর প্রধান প্রাক্তন বিমান বাহিনী প্রধানগণ বিমান সদরের

প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার আমন্ত্রিত অতিথি এবং ঊর্ধ্বতন সামরিক ও
বেসামরিক কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুনঃ





Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *