Main Menu

দিনাজপুরে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলন

মোঃ আফজাল হোসেন, দিনাজপুর প্রতিনিধি:
দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১/২ এর জেনারেল ম্যানেজার ২০১৬ইং সালের সরকারী সার্কুলার অবজ্ঞা করে তড়িঘড়ি করে গভীর নলকূপের কমান্ডিং এরিয়ার মধ্যে সাবমার্সিবল পাম্পের সংযোগ দেওয়ার প্রতিবাদে ফুলবাড়ী থানা প্রেস ক্লাবে গভীর নলকূপ কৃষক কল্যাণ সমিতি ফুলবাড়ী শাখা সভাপতি শাহ্ ইলিয়াসুর রহমান,   শনিবার সকাল সাড়ে ১১ টায় এক সাংবাদিক সম্মোলেন করেন।
সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করে বলেন, ২০১৫ ইং সালে জেলা প্রশাসক ও বিভাগীয় কমিশনারগণের মুক্ত আলোচনা কালে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী উপস্থিতিতে প্রধান মন্ত্রীর কর্য্যালয়ে গত ২৮/০৭/২০১৫ ইং তারিখে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগে ২৯/০৭/২০১৫ ইং তারিখে কৃষি মন্ত্রী এবং প্রাণি সম্পদ প্রতিমন্ত্রীর উপস্থিতিতে উপজেলা পানি সেচ কমিটি গঠনের সংক্রান্ত পরিপত্র সকলের নিকট প্রেরণ করতে হবে এবং সেচ কমিটি গঠন সংক্রান্ত তথ্যাদি ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবস্থাপনার বিধিমালা ১৯৮৭ এর একটি প্রজ্ঞাপন পরবতী ব্যবস্থা গ্রহণে জন্য অত্র দপ্তরকে জানিয়ে দেন। সেই সূত্রে গত ১৫ইং মার্চ তারিখে জেলা প্রশাসক দিনাজপুরকে পত্র দ্বারা অবহিত করেন।
দিনাজপুর জেলা প্রশাসক সার্কুলারটি বাস্তবায়নের জন্য গত ৩০ শে জানুয়ারী ২০১৭ ইং তারিখে দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ ও ২ এর জেনারেল ম্যানেজারকে নিদের্শক্রমে অনুলিপি প্রেরণ করেন।
ফুলবাড়ী উপজেলার এনায়েতপুর গ্রামের মৃত: দফিল উদ্দিনের পুত্র মোঃ খাইরুল আলম ০৮/০২/২০১৭ইং তারিখে উ.ঞ.গ  এরিয়ার মধ্যে ঝ.ঞ.গ  বিদ্যুৎ সংযোগ না দেওয়ার জন্য ফুলবাড়ী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ কে একটি লিখিত অভিযোগ দেয়। সেই অভিযোগও আমলে নেয় নি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২।
অপর দিকে হাকিমপুর উপজেলার বোয়ালদাড় গ্রামে মৃত: আজাহার আলীর পুত্র মোঃ নুরুল ইসলাম অগভীর নলকূপে বিদ্যুৎ সংযোগ সাবমার্সিবল ব্যবহার করার প্রসঙ্গে হাকিমপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর ০৬/০২/২০১৭ ইং তারিখে একটি অভিযোগ দেন। তিনি পল্লী বিদ্যুৎ এজিএম কে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নিদের্শ দেন। গত ১১/০২/২০১৭ ইং তারিখে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী ঐ অভিযোগে জিএম বরাবরের সুপারিশ করেন।
সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ করেন কল্যাণ সমিতি সভাপতি শাহ্ ইলিয়াসুর রহমান বলেন, ১৯৮৭ ইং সালের ভূমি মন্ত্রণালয়ের কৃষি বিভাগের গেজেট অনুযায়ী সেচের পানি বন্টনের দুইটি গভীর নলকূপের পারস্পরিক দূরত্ব হবে ২৫০০ ফুট, একটি গভীর নলকূপের মধ্যে ১৭০০ ফুট  এবং দুটি অগভীর নলকূপের মধ্যে ৮০০ ফুট। কিন্তু পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার কি করে সরকারী সার্কুলার অবজ্ঞা করে কিসের লোভে অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে গভীর নলকূপ ও অগভীর নলকূপ এর মালিকদের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি করে দিচ্ছেন। এই মর্মে কৃষক কল্যাণ সমিতি বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রনালয়ের সচিব বরাবর একটি অভিযোগ প্রেরণ করেন। একই পত্র কৃষি মন্ত্রনালয়ের সচিব বরাবর প্রেরণ করেন। সাংবাদিক সম্মোলনে গভীর নলকূপ কৃষক কল্যাণ সভাপতি শাহ্ ইলিয়াসুর রহমান ২০১৬ ইং সালে সরকারী সার্কুলারটি দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানান।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *