Main Menu

প্রচার বিমুখ ও নিরব সমাজসেবক শামছুদ্দীন মুন্নাশাহ | বাংলারদর্পন 

ওমর ফারুক/আলাউদ্দীন : শামছুদ্দীন মুন্নাশাহ পেশায় একজন ব্যবসায়ী। স্কুল জীবন শেষ করে চট্টগ্রাম সিটি কলেজে লেখা পড়া করেন।ছাত্র জীবন শেষ করে তিনি ব্যবসায় আত্ম নিয়োগ করেন।বর্তমানে তিনি আছাদগঞ্জ একজন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও চট্টগ্রাম হার্ডওয়ার মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান। ব্যবসার পাশাপাশি তিনি  রাজনীতি ও সমাজ সেবামুলক কাজে নিয়োজিত রয়েছেন। রাজনৈতিক ভাবে তিনি আওয়ামীলীগের একজন একনিষ্ঠ কর্মী।তিনি ৩৫ নং বক্সির হাট শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু সৈনিকলীগ কোতোয়ালী থানা শাখার সাবেক সভাপতি। তিনি এলাকার জনসাধারণের স্বার্থ সংশ্লীষ্ট সমস্যা সমাধানে অগ্রণী ভুমিকা পালন করেন এবং গরীব দুঃখী মানুষের সুখে দুঃখে তাদের পাশে থাকেন।ইতিমধ্যে জনহিত কাজ করে এলাকার জনসাধারণের নিকট প্রশংসিত হয়েছেন। এলাকার জনগণও এখন ভালমন্দ যে কোন কাজে তাকে পাশে পেতে স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন।মুন্নাশাহ নিজ উদ্যোগে এলাকায় বেশ কিছু গুরুত্বপুর্ণ কাজ করেছেন যেগুলির সুফল এখনও সবায় ভোগ করছেন।তিনি নিজ খরছে আছাদগঞ্জ বি রহমান মার্কেটের  সামনে একটি ডিপ টিউবয়েল ও পানির টাংকি বসিয়ে এলাকার জনগণের জন্য সুপীয় পানির ব্যবস্থা করেন। একই স্থানের পাশে একটি নর্দমার উপর স্লাপ না থাকায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ ও জনগণের ভোগান্তি হতো।তিনি নিজ উদ্যোগে ও নিজ খরছে ঐ নর্দমার উপর স্লাপ নির্মান করে দেন। আছাদগঞ্জ পোষ্ট অফিস গলিতে একটি নর্দমা ভরাট হয়ে পড়ার করণে দীর্ঘ দিন এলাকার জনগণকে ভোগান্তি পোহাতে হতো। তিনি উদ্যোগী হয়ে সিটি কর্পোরেশনের সহায়তায় ঐ নর্দমাটি সংস্কার করে জনগণের দীর্ঘ দিনের ভোগান্তি লাঘব করেন।প্রতি বছর শীত মৌসুমে তিনি নিজ খরছে গরীব দুঃখী লোকদের মধ্যে কম্বল বিতরণ করেন।ঈদে মিলদুন্নবীসহ বিভন্ন সময়ে নিজ ও আশপাশের এলাকার মসজিদ গুলোতে ওয়াজ মাহফিলে আর্থিক অনুদানসহ  বিভিন্ন সহায়তা প্রদান করে থাকেন। এলাকার গরীব ছাত্র-ছাত্রীরা স্কুল কলেজে পরীক্ষার ফীস বা ভর্তির জন্য অর্থ সংকটে পড়ে তার নিকট আসলে তিনি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন।প্রতি বছর রমজান মাসে তিনি  নিজ খরছে বিভিন্ন মসজিদে মিনারেল ওয়াটারের জার সরবাহ করে মসুল্লীদের জন্য সুপীয় পানির ব্যবস্থা করেন। প্রতিটি জাতীয় ও সাধারণ নির্বাচনে নিজ দলের মবোনীত প্রার্থীকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে মাঠে সক্রীয় ভাবে কাজ করেন। বর্তমানেও তার নিজ দল আওয়ামীলীগের বিভিন্ন কর্মসুচীতে ব্যবহৃত ব্যানার ও ফেষ্টুনের খরচ তিনি বহণ করেন।সর্বাপরী এলাকায় অসামাজিক কার্যকালাপ ও মাদক ব্যবসা প্রতিরোধে তিনি সব সময় সোচ্চার।তার বিভিন্ন ইতিবাচক কর্মকান্ডের কারণে বর্তমানে তিনি এলাকার জনগণের খুব কাছের বন্ধু। আছাদগঞ্জ ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেনের সাথে মুন্নাশাহ্ কর্মকান্ড সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন,মুন্নাশাহ্ ব্যবসা করে যে টাকা আয় করেন তার অর্ধেকই রাজনীতি ও সমাজ সেবার কাজে ব্যয় করেন।তিনি একজন নিঃস্বার্থ রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবী। রাজনীতি থেকে কিছু নেন না বরং নিজের  টাকাই রাজনীতি ও জনস্বার্থে ব্যয় করেন।আছাদগঞ্জ ব্যবসায়ী ও প্রগতি এন্টার প্রাইজের সত্ত্বাধীকারী শিমুল চৌধুরী বলেন,মুন্না ভাই বর্তমানে আছদগন্জবাসীর সুখ-দুঃখের সাথী।তার মত একজন নিঃস্বার্থ সমাজ সেবী ও রাজনীতিবিদকে আমরা সব সময় কাছে পেতে চাই।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *