Main Menu

নিজেদের অতীত ঢাকতেই সরকারের বিরুদ্ধে লুটপাটের অভিযোগ করছে বিএনপি

নিউজ ডেস্ক :

১০ মে সংবাদ সম্মেলন করে সরকারের বিরুদ্ধে ব্যাংকিং সেক্টর লুটপাটের যে অভিযোগ আনে বিএনপি, তা কতটুকু সত্যতা বহন করে সে বিষয়ে বিএনপি তেমন কোন তথ্য উপস্থাপন করতে পারেনি। ধারণা করা হচ্ছে রাজনৈতিক ঈর্ষার বশবর্তী হয়েই এমন প্রতিহিংসামূলক অভিযোগ আনে দলটি। তাদের দাবি করা লুটপাটের কোনো চিত্রই দেশের মানুষের কাছে ধরা পড়েনি। কেননা বিগত ১০ বছরে দেশের দারিদ্রতার সুচক অভাবনীয় ভাবে হ্রাস পেয়েছে, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার বৃদ্ধি পেয়েছে এবং বিদেশী বিনিয়োগ বিগত যেকোন আমল থেকে উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

ধারণা করা হচ্ছে নিজেদের শাসনামলে করা লুটপাট ও অর্থ সন্ত্রাসের খবর ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বিভিন্ন সময় জনগণের সামনে তুলে ধরলে নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতেই তাদের এ অপপ্রয়াস। মূলত বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার দুর্নীতি আড়াল করতে সরকারের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ দিচ্ছে বিএনপি। দুর্নীতি দমন কমিশনে বিচারাধীন ৩২টি অর্থ পাচার মামলার বেশির ভাগই বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে। এখানে যেসব উল্লেখযোগ্য নেতা রয়েছেন, তাদের মধ্যে তারেক রহমান, তার বন্ধু গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, সাবেক মন্ত্রী মোর্শেদ খান ও খন্দকার মোশাররফ হোসেনের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে দুদকের করা অর্থ পাচার ও মানি লন্ডারিং মামলা চলমান রয়েছে। লুৎফুজ্জামান বাবর, আলী আসগর লবী, মওদুদ আহমদ ও তার স্ত্রীসহ বিএনপির অনেক নেতার বিদেশে অর্থ পাচারের বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে। তাই বলা যায়, খালেদার দুর্নীতি থেকে জাতির দৃষ্টি সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা হিসেবে বিএনপি এসব বলছে।

সরকারি ব্যাংকের ২৫ শতাংশ ঋণ ২০ থেকে ২২ জন লোকের কাছে, এমন দাবি করে বিএনপি। যা মোটেই সঠিক নয়। তাঁরা দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসায় শিল্পের সঙ্গে জড়িত। শিল্পপতি হিসেবে পরিচিত।

চোরের মায়ের বড় গলা প্রবাদটি সত্য প্রমাণিত হয় যখন অসত্য ও ভিত্তিহীন তথ্য উপাত্ত দিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রয়াস চালায় বিএনপি।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *