Main Menu

ইউনিয়ন পরিষদের নারী সদস্যকে জনসমক্ষে পেটালেন চেয়ারম্যান ★ বাংলারদর্পন

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

২৩ জানুয়ারি ২০১৮।

নওগাঁর মান্দা উপজেলার প্রসাদপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) একজন নারী সদস্যকে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ডের তালিকা নিয়ে বিরোধের জেরে গত রোববার জনসমক্ষে এ ঘটনা ঘটে।

ইউপির সদস্যরা গতকাল সোমবার এক সংবাদ সম্মেলন করে সংরক্ষিত ২ নম্বর ওয়ার্ডের নারী সদস্য জুলেখা খাতুনকে মারধরের ঘটনার বর্ণনা দেন। পাশাপাশি তাঁরা ইউপি চেয়ারম্যান বেলাল হোসেন খানের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ এনেছেন। তবে বেলাল দাবি করেছেন, উল্টো ওই ইউপি সদস্যরাই তাঁর ওপর হামলা করেছেন। রোববারের ঘটনায় উভয় পক্ষই থানায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দিয়েছে।

গতকাল বেলা ১১টায় গোটগাড়ী বাজারে ইউপি কার্যালয়সংলগ্ন একটি স্থানে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে প্রসাদপুর ইউপির আটজন সদস্য উপস্থিত ছিলেন। তাঁদের মধ্যে শরীফ উদ্দীন সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান।

লিখিত বক্তব্যে শরীফ উদ্দীন বলেন, তাঁরা সবাই প্রসাদপুর ইউপির নির্বাচিত সদস্য। তা সত্ত্বেও তাঁদের না জানিয়ে গত শনিবার চেয়ারম্যান বেলাল মাইকিং করে বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ডের তালিকা করতে সভা আহ্বান করেন। ইউনিয়নের গোবিন্দপুর উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠে রোববার ওই সভা হওয়ার কথা ছিল। চেয়ারম্যান রোববার বেলা ১১টার দিকে ওই সভাস্থলে যাচ্ছিলেন। গোটগাড়ী কলেজ মোড় এলাকায় তাঁর পথ রোধ করেন ইউপি সদস্য জুলেখা খাতুন। অন্য ইউপি সদস্যরা আশপাশেই ছিলেন। জুলেখা চেয়ারম্যানের কাছে সভার বিষয়ে জানতে চান। চেয়ারম্যান এ বিষয়ে তাঁর সঙ্গে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে কথা-কাটাকাটি শুরু হয়। একপর্যায়ে চেয়ারম্যান বেলাল রাস্তার পাশে পড়ে থাকা একটি চ্যালা কাঠ দিয়ে জুলেখাকে পেটাতে শুরু করেন। এতে জুলেখা মাটিতে পড়ে যান। তখন আশপাশের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে চেয়ারম্যান বেলালকে মারতে উদ্যত হন। তিনি একটি বাড়িতে লুকিয়ে রক্ষা পান। আহত জুলেখা মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে এ ঘটনায় চেয়ারম্যানের পদ থেকে বেলালকে বরখাস্তসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান ওই ইউপি সদস্যরা।

তবে ইউপি চেয়ারম্যান বেলাল হোসেন খান বলেন, ‘আমি কারও গায়ে হাতে তুলিনি। মারধরের যে অভিযোগ করা হয়েছে তা ভিত্তিহীন।’ স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বিধবা, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী ভাতার তালিকা তৈরির চেষ্টা করছেন দাবি করে তিনি বলেন, এই কাজের জন্যই পূর্বনির্ধারিত সভায় যাচ্ছিলেন। পথে কলেজ মোড়ে তাঁর ওপর হামলা করেন জুলেখাসহ অন্য ইউপি সদস্যরা।

মান্দা থানার ওসি আনিসুর রহমান বলেন, চেয়ারম্যানের সঙ্গে সদস্যদের হট্টগোলের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। রোববারের ওই ঘটনায় দুই পক্ষই পাল্টাপাল্টি মারধরের অভিযোগ করেছে। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নানা অভিযোগ –

ইউপি কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, প্রসাদপুর ইউপির চেয়ারম্যান বেলালের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ এনে গত বছর ইউপির নয়জন সদস্য অনাস্থা প্রস্তাব আনেন। এর মধ্যে ছিল নিয়ম ভেঙে একাধিক প্রকল্পের সভাপতি হওয়া, ইউপি সদস্যদের স্বাক্ষর জাল করা এবং বিভিন্ন প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ। পরে গত বছরের ৩১ জুলাইতাঁরা এ বিষয়ে তদন্ত করতে জেলা প্রশাসক ও ইউএনওর কাছে লিখিত আবেদন করেন। এ নিয়ে গত বছরের ৯ আগস্ট

মান্দার ইউএনও রেজাউল করিম বলেন, ‘আমি নতুন এসেছি। সম্ভবত আগের ইউএনওর সময় ওই অভিযোগ দেওয়া হয়েছিল। বিষয়টি কী অবস্থায় আছে, খোঁজ নিতে হবে। তদন্ত না হয়ে থাকলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।’






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *