Main Menu

ফেনীতে দলবেঁধে ধর্ষণ : তিন আসামির মৃত্যুদণ্ড

ফেনী থেকে ফুয়াদ:
ফেনীতে কিশোরী মেয়েকে দলবেঁধে ধর্ষণের মামলায় তিন আসামিকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

আজ বৃহস্পতিবার ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ ওসমান হায়দার এ রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত তিন আসামি হলেন ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের নাজিরপুর গ্রামের আবুল কালামের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম, ফকির আহম্মদের ছেলে আবুল কাশেম ও সুলতানপুর গ্রামের আবদুর রশিদের ছেলে মো. লাতু। তিন জনই যুবদলের সক্রিয় কর্মী ছিলেন ।

মামলার পর তাঁদের তিনজনকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। পরে জামিনে ছাড়া পেয়ে পালিয়ে যান তাঁরা।

একই মামলায় মো. ফারুক নামের অপর এক আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত তাঁকে বেকসুর খালাস দেন। রায় ঘোষণার সময় ফারুক আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

আদালতের নথি সূত্রে জানা যায়, ২০০৩ সালের ১২ মে গভীর রাতে সোনাগাজী উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের একটি ঘরের দরজা ভেঙে চারজন ভেতরে প্রবেশ করেন। এ সময় তাঁরা এক মা ও তাঁর কিশোরী মেয়েকে (১৩) টেনেহিঁচড়ে বাইরে নিয়ে আসেন এবং মাকে বেঁধে গলায় ছুরি ধরে হত্যার ভয় দেখিয়ে আটক রাখেন। এরপর মায়ের সামনেই মেয়েকে ধর্ষণ করেন।

এ ঘটনায় ওই কিশোরীর মা বাদী হয়ে পরদিন সোনাগাজী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মো. ফারুক, জাহাঙ্গীর আলম, আবুল কাশেম ও মো. লাতুসহ চারজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন।

মামলার তদন্ত শেষে একই বছর ১৩ আগস্ট সোনাগাজী থানার উপপরিদর্শক নুরুল ইসলাম ওই চার আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেন। মামলার শুনানির সময় নয়জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়।

আসামিপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম। মামলায় বাদীপক্ষের আইনজীবী ও ফেনীর আদালতের সরকারি জ্যেষ্ঠ সহকারী কৌঁসুলি ফরিদ আহম্মদ হাজারী বলেন, মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত তিনজন আসামি পলাতক আছেন। তাঁরা গ্রেপ্তার হওয়ার বা আদালতে আত্মসমর্পণ করার পর রায় কার্যকর হবে।

শেয়ার করুনঃ





Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *