Main Menu

সোনাগাজীতে হঠাৎ কিশোরগ্যাং আতঙ্ক : পৃথক চারটি ঘটনায় আহত ১২ | বাংলারদর্পণ

সৈয়দ মনির আহমদ :
ফেনীর সোনাগাজীতে হঠাৎ বেড়েছে কিশোর অপরাধ । গত এক সপ্তাহে উপজেলায় পৃথক চারটি ঘটনায় অন্তত ১২জন আহত হয়েছেন । সোমবার (২৬জুলাই) পুলিশ সক্রিয় এক কিশোরগ্যাং সদস্যকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করেছে। সোনাগাজীতে হঠাৎ কিশোরগ্যাং আতঙ্কে উদ্বিগ্ন ভুক্তভোগীসহ স্থানীয় অভিভাবকগণ।

জানা যায়, গত ২৪জুলাই উপজেলার মতিগঞ্জে মাদক বিক্রেতা ও বহু মামলার আসামি সিরাজুল ইসলাম বাবুল টাইগারকে মাদক বিক্রয়কালে আটক করে স্থানীয় স্কুল-কলেজ পড়–য়া কয়েকজন শিক্ষার্থী।

এরই জেরে ওইদিন রাতে মতিগঞ্জ বাসস্ট্যান্ডে বাবুল টাইগারের ছেলে স্থানীয় কিশোরগ্যাং লিডার আরিফুল ইসলাম হৃদয়ের (১৭) নেতৃত্বে ১৫/২০ জন কিশোর বখতারমুন্সি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা আজমান সায়েখ সিফাতের উপর সশস্ত্র হামলা করে। মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম নিয়ে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধিন আছেন সিফাত ।

এ ঘটনায় সিফাতের দায়েরকৃত মামলার এজাহার নামীয় আসামী ও হৃদয় গ্রুপের সদস্য সাগর(১৮)কে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ। অপর আসামীরা ঘটনার পর থেকেই পলাতক বলে জানায় পুলিশ।

২৬জুলাই সকালে হুন্ডি ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জেরে উপজেলার সোনাপুর তিনবাড়ীয়া গ্রামের মো.মোস্তফার ছেলে আবদুল্যাহ মো.ভুট্টোকে কুপিয়েছে একই গ্রামের মাতবর বাড়ীর আবদুল্যাহ রিংকু(২৩) ও তার সহযোগী মহিম (২১), শিপন(১৬) এবং রফিক(১৭)। গুরুতর আহত ভূট্টো ফেনী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি আছেন ।

আহতের পিতা মোস্তফা জানায়, হামলাকারীরা সরকারি দলেরর কয়েকজন প্রভাবশালী নেতার ছত্রছায়ায় সংঘবদ্ধ কিশোর গ্যাং টিম তৈরি করে চাঁদাবাজি, ছিনতাই সহ সকল অপরাধ করছে। সকলের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা থাকা স্বর্তেও পুলিশ নীরব ভুমিকা পালন করছে। তিনি আরো বলেন, থানায় মামলা দিয়ে কোন কাজ হবেনা তাই আদালতে মামলা দেয়া হবে। এ ব্যাপারে রিংকু জানায়, পাওনা টাকা চাওয়ায় তার ভাই রুবেলকে দফায় দফায় হত্যার চেষ্টা করেছে ভুট্টো এবং তার ভাই জসিম উদ্দিন।

এর আগে গত ২১জুলাই রাতে উপজেলার চর শাহাপুরে পাওনা টাকা চাওয়ার জেরে নুরুজ্জামান সুমন নামে এক কিশোরকে কুপিয়ে জখম করেছে একই গ্রামের কিশোরগ্যাং লিডার রনি(১৬) ও তাঁর সহযোগীরা।

এসময় সুমনকে বাঁচানোর চেষ্টাকালে কিশোরগ্যাংয়ের হামলার শিকার হন, সুমনের মা, বাবা ও ছোট ভাই। এ ঘটনায় ২২জুলাই থানায় অভিযোগ দেন সুমনের ভাই নুর আলম। এ ঘটনায় কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। বাদীর দাবি হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ।

তবে মামলার আইও পুলিশের এসআই মো. ইয়াকুব’র দাবি ঘটনার পর থেকে সকলেই পলাতক।

অপরদিকে ২৫জুলাই রাতে উপজেলার উত্তর চর ছান্দিয়া গ্রামে কিশোরগ্যাং সদস্যদের প্রকাশ্য মাদক সেবনে বাধা দেয় মোহাম্মদপুর সমাজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবুল হাসেম।

এরই জেরে মধ্যরাতে মো. শাকিলের নেতৃত্বে সংঘবদ্ধ কিশোরগ্যাং সদস্যরা আবুল হাসেমসহ কয়েকজন সমাজপতির বাড়ী ও সমাজ কমিটির নিয়ন্ত্রিত মোহাম্মদপুর ক্লাবে হামলা এবং ভাংচুর চালায় । এ ঘটনায় সমাজপতি আবুল হাসেম বাদি হয়ে শাকিল ও তার সহযোগী কিশোরগ্যাং সদস্যদের আসামী করে থানায় অভিযোগ দেন।

তদন্ত কর্মকর্তা এসআই নিয়াজ মাহমুদ খান জানান, রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও এজাহারনামীদের বাড়ীতে অভিযান চালানো হয়েছে । সকলেই পলাতক আছে। উপজেলা সরকারি প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মাস্টার হুমায়ুন কবির সেলিম বলেন, উপজেলায় হঠাৎ কিশোর অপরাধ বেড়েছে । এতে ভুক্তভোগীর পরিবারসহ স্থানীয় অভিভাবকগণ চরম আতঙ্কে রয়েছেন।

সোনাগাজী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাজেদুল ইসলাম জানান, বিচ্ছিন্ন এসব ঘটনা অত্যন্ত গুরুত্বের সহিত দেখা হচ্ছে। মতিগঞ্জের কলেজ ছাত্র সিফাতের ঘটনায় এজাহার আসামী সাগরকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। শাহাপুর ও উত্তর চর ছান্দিয়ার ঘটনায় তদন্ত চলছে । শীঘ্রই তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি আরো জানান, কিশোর অপরাধ দমনে জিরোটলারেন্স নীতি গ্রহন করেছে পুলিশ।

বাংলারদর্পণ

শেয়ার করুনঃ





Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *