Main Menu

ফেনী রূপালী ব্যাংকের জোনাল ম্যানেজারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

ফেনী প্রতিনিধি:

ফেনী রূপালী ব্যাংকের জোনাল ম্যানেজার মো: শাহাজাহানের ক্ষমতা অপব্যবহার, বদলী-বাণিজ্য, দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ ও টাকার পাহাড় তৈরীর অভিযোগে ফেনীর পরশুরাম উপজেলার মৃত পেয়ার আহাম্মদের পুত্র মো: ফিরোজ এবং রূপালী ব্যাংকের নাম গোপন রাখা নয় শাখা ব্যবস্থাপক ২২ জানুয়ারি রূপালী ব্যাংকের চেয়ারম্যান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনরে কাছে অভিযোগ পত্র পাঠিয়েছেন। ওই অভিযোগ পত্রটি উল্লেখ করা হলো।

 

ফেনী রূপালী ব্যাংকের জোনাল ম্যানেজারের সীমাহীন দুর্নীতি ও অবৈধ টাকার সম্পদ তৈরী

ফেনী রূপালী ব্যাংক লি: এর বর্তমান জোনাল ম্যানেজার মোঃ শাহজাহান সম্পূর্ন বেআইনী ও দুর্নীতি মূলক কর্মকান্ডে এবং বদলী বাণিজ্য অব্যাহত রাখায় ব্যাংকের বহু ক্ষতি হচ্ছে। তিনি জোনাল ম্যানেজার হওয়ার পূর্বে ফেনীর নতুন রানীর হাট শাখার ম্যানেজার ছিলেন। ঘুষের বিনিময়ে ওই খানে তিনি ৫০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ও তার উর্ধ্বে নামে-বেনামে অগণিত ঋণ দেন। ঐ সকল ঋণ শ্রেণি বিন্যাস হয়েছে। এরপর তাকে ঐ শাখা থেকে বদলী করা হয় ফেনী কর্পোরেট শাখায়। কর্পোরেট শাখায় এসে তিনি তার অপকর্ম ও ঘুষ গ্রহণ বাড়িয়ে দেয়। এখানে এসে তিনি ৯০ টিরও বেশি ভূয়া নামে বেনামে এস.এম.ই ঋণ দেন, যা অস্থিত্বহীন। বার বার রূপালী ব্যাংক লি:, হেড অফিস থেকে অডিট আসার পরে সে অধিক টাকার বিনিময়ে তাদেরকে ম্যানেজ করেন। এই অপকর্মের জন্য তাকে চট্টগ্রাম বদলী করা হয়। এরপর সে চট্টগ্রামের ষ্টেশন রোড শাখার ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব পান। এই দায়িত্ব পেয়েই সে ঐখানকার এক ভূয়া ব্যবসায়ীকে ১৮ কোটি টাকা এল.সি ঋণ দেন। যা বর্তমানে ফোর্স ঋণে পরিণত হয়। এরপর সে গত ৩ মাস আগে তৎকালীন ঘুষ খোর দুর্নীতিবাজ, নারী লোভী, ডি.এম.ডি দেবাশীষ চক্রবর্তীকে মোটা অংকের ঘুষ প্রদান করে ফেনী জোনাল ম্যানেজার পদে নিয়োগ পান। নিয়োগ পেয়ে ফেনীতে এসে শুরু করেন বদলী ও ঋণ বাণিজ্য। এই পর্যন্ত তিনি ২৭ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে অকারনে বদলী করেন এবং প্রতিটি ঋণ নবায়ণ, বর্ধিত করন, ১৮% ঘুষের বিনিময়ে অসামাঞ্জস্য ঋণ দেন। তাকে এ কাজে সহযোগীতা করেন আরেক মারাতক ঘুষ খোর রূপালী ব্যাংক লি:, টি.এম.হাট শাখার ব্যবস্থাপক আবুল কাশেম। কাশেমের বিরুদ্ধেও দশ টাকা থেকে লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঘুষ অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে শত শত।ফেনী রূপালী ব্যাংকের জোনাল ম্যানেজারের সীমাহীন দুর্নীতি ও অবৈধ টাকার সম্পদ তৈরী

 

 

আভিযোগ পত্রে এও উল্লেখ করা হয়, জোনাল ম্যানেজার মোঃ শাহজাহান রূপালী ব্যাংক লি:, নতুন রানীর হাট শাখার ম্যানেজার কাউছারকে ৫০ লক্ষ টাকার বেনামী ভুয়া ঋণ তৈরীর জন্য মৌখিক আদেশ দিয়ে অনেক চাপ সৃষ্টি করে এবং তার প্রমোশন পাইয়ে দিবে বলে লোভ দেখায়। কিন্তু শাখা ব্যবস্থাপক কাউছার সৎ অফিসার হওয়ায় এতে রাজী না হওয়ায় তাকে বদলী করে রূপালী ব্যাংক লি:, বসুরহাট শাখায় এবং তার প্রমোশন না করে দেওয়ার হুমকি ধমকিও দেয়।

 

নতুন রানীর হাট শাখার শাখা ব্যবস্থাপক থাকা থেকে বর্তমান ফেনীর জোনাল ম্যানেজার থাকাবস্থায় তাহার নামে-বেনামে ঘুষের টাকায় অর্জিত সম্পদের বিবরণ: ফেনীর কর্পোরেট শাখার ৯০টি বেনামে ঋণের টাকায় ফেনী শহরের নাজির রোড এলাকায় সুফি সদর উদ্দিন রোডে বিলাশবহুল ৬ তলা ভবন তৈরী করে এবং ঢাকার পশ্চিম মানিকদিতে মূল্যবান সাড়ে ৪ কাঠা জমি স্ত্রীর নামে ক্রয় করেন। ফেনী শহরের বারাহীপুর মৌজায় মূল্যবান ১৪  শতাংশ ভূমি ক্রয় করেন এবং ২০১৫ মডেল এর দামী প্রিমিও গাড়ী ব্যবহার করেন এবং চট্টগ্রাম মাদাম বিবির হাটে ৬৮ শতাংশ দামী ভূমি ক্রয় করেন এবং তার ২য় স্ত্রীর নামে চট্টগ্রামের সি.ডি.এ আবাসিক এলাকায় ২৭শ স্কয়ার ফিট এর প্লাট ক্রয় করেন।

 

শাহজাহান এর পরিচিতি: শাহজাহান ফেনী জেলার পরশুরাম উপজেলা সীমান্তবর্তী মালিপুর গ্রামের কুখ্যাত হুন্ডি ব্যবসায়ী, মাদক ও চোরাকারবারি সুলতান আহাম্মদের পুত্র। ছাত্র জীবনে তিনি ইসলামী ছাত্র শিবির পরশুরাম উপজেলার ক্যাডার ছিল। বিএনপি প্রথম ক্ষমতায় এলে তিনি বিএনপিতে যোগ দেন। নানা অপকর্মে পরশুরাম থেকে ফেনীতে আসেন। তিনি কলেজ জীবনে ফেনী সদর থানার মালিপুর এলাকায় লজিং থাকতেন।মালিপুরে নিজ ছাত্ররসাথে অনৈতিক আপত্তিকর কাজের জন্য জনরোষ থেকে বাঁচতে ঐ লজিং বাড়ীতে বিছানা, বই পত্র রেখে পালিয়ে যান। ব্যাংকের কিছু কিছু মহিলা স্টাফের প্রতিও কু-নজর দেয়ার চেষ্টা করেন। এই নিয়ে ব্যাংকের বাহিরে অনেকবার শালিশ হয়। সম্মানিত পদে চাকুরী করায় এই সকল ঘটনা দামাচাপা থেকে যায়। এই জোনাল ম্যানেজারের কারণে গোটা ফেনী জেলার রূপালী ব্যাংক শাখাগুলো সর্বদিকে জিম্মি ও ঝুঁকিতে।

 

অভিযুক্ত জোনাল ম্যানেজার মোঃ শাহজাহান ও তার কু’কর্মের একমাত্র সহযোগী টি.এম.হাট এর বর্তমান শাখা ব্যবস্থাপক আবুল কাশেম এর বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ও আইনী ব্যবস্থা নেওয়া দাবি জানান অভিযোগকারী ফিরোজসহ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রূপালী ব্যাংকের নয় শাখার শাখা ব্যবস্থাপকবৃন্দ।

 

সুত্র:-দৈনিক আমার বার্তা।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *