Main Menu

প্রতিবন্ধীকে মারধর ও উচ্ছেদের অভিযোগে উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা

ফুলগাজী সংবাদদাতা :

ফুলগাজীর সেই প্রতিবন্ধী নারীকে মারধর ও বসতঘর থেকে উচ্ছেদের অভিযোগে উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও সদর ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

 

আদালত মামলাটি তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশনের (পিবিআই) ওপর ন্যাস্ত করা হয়েছে।ফেনী পিবিআইয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মামলাটি তদন্ত করে ১৫ দিনের মধ্যে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার আদেশ দেন আদালত।

 

মামলায় বাদী ফরিদা নাহার রিনা আদালতে দায়ের করা অভিযোগে বলেন, তিনি একজন প্রতিবন্দী। ২০০২সালে ফুলগাজী উপজেলার মোহাম্মদপুর গ্রামে বাদীর বসত ঘর ও আশেপাশের কিছু জমি তাঁর পিতা হাবিবুল্লাহ বাহার ছাপ কবলা দলিল মূলে তাঁকে প্রদান করেন। তিনি স্বামী সন্তান নিয়ে সেখানে বসবাস করছেন। ইতিমধ্যে জমির মূল্য বেড়ে যাওয়ায় তাঁর বাবা ও ভাইয়েরা তাঁকে উচ্ছেদের চেষ্টা করছেন। এ কাজে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদেরকেও ব্যবহার করা হয়েছে।

 

গত ২ এপ্রিল রাত ৯টার দিকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল আলীম মজুমদার, ভাইস চেয়ারম্যান মঞ্জুরা আজিজ, ফুলগাজী সদর ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম, তার বাবা হাবিবুল্লাহ বাহার, মা মনোয়ারা বেগম, ভাই হুমায়ন বাহার রুমন ও আরিফুল বাহার সুজনসহ আরও ৭-৮জন লোক তাদের ঘরে ঢুকে ঘর থেকে বেরিয়ে যেতে বলেন। তাঁরা বের হতে না চাইলে তাকে, তাঁর স্বামী ও ছোট দুই ছেলে মেয়েকে মারধর করে মারাত্মকভাবে আহত করে বসত ঘর থেকে বের করে দেয়। বর্তমানে তাঁর পরিবার অশ্রয়হীন ও মানবেতর জীবন যাপন করতে বাধ্য হচ্ছে।

 

জানতে চাইলে ফুলগাজী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল আলীম মজুমদার মুঠোফোনে জানান, বাবার পরিবার ও মেয়ের পরিবারের মধ্যে জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। মেয়ে প্রতিবন্দী হওয়ায় বাবা তাকে কিছু জমিও দেয়। কিন্তু ওই নারী প্রতিবন্দী হলেও শালিস মানতে চায়না। তাদেরকে বাবার ঘর থেকে বের করে পাশের একটি ঘরে থাকতে দেওয়া হয়েছে। তিনি মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করেন।

 

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য বাদির বাবা হাবিবুল্লাহ বাহারকে পাওয়া যায়নি।

 

ফেনী জজ আদালতের আইনজীবি ফয়েজুল হক মিলকী তাঁর মক্কেলকে সপরিবারে মারধর ও ঘর থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগে আদালতে মামলা দায়ের ও মামলাটি তদন্তের জন্য পিবিআইয়ের ওপর ন্যাস্ত করার বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেন।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *