Main Menu

বিদ্যুৎ উৎপাদনে রেকর্ড : নির্বাচনী ইশতেহার পূরণ করলো সরকার

 

 

নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন পরিমাণ প্রথমবারের মতো ১০ হাজার মেগাওয়াট ছাড়িয়েছে। এ অর্জনের মাধ্যমে একদিকে যেমন দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদনে রেকর্ড তৈরি হলো তেমনি বিদ্যুতে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের নির্বাচনী ইশতেহার পূরণ করলো আওয়ামী লীগ সরকার।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) তথ্য অনুযায়ী, ১৯ মার্চ সন্ধ্যায় ১০ হাজার ৮৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়। যা দেশে প্রথম সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ উৎপাদনে রেকর্ড।

জানা গেছে, ১০ হাজার মেগাওয়াট ছাড়ানোর আগে ১৫ মার্চ বিদ্যুতের উৎপাদন ৯ হাজার ৭১৫ মেগাওয়াটে উন্নীত হয়। এর পর থেকে প্রতিদিনই উৎপাদন ধারাবাহিকভাবে বাড়ছিল। ওইদিন সন্ধ্যায় তা ১০ হাজার মেগাওয়াটের ঘর স্পর্শ করে। সে সময় বিদ্যুতের চাহিদাও ছিল ১০ হাজার মেগাওয়াট।

প্রসঙ্গত, ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার ক্ষমতায় আসার পর বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সংখ্যা ২৭টি থেকে বেড়ে হয়েছে ১০৮টি। উৎপাদন ক্ষমতা ৪ হাজার ৯৪২ মেগাওয়াট থেকে বেড়ে ১৫ হাজার ৩৫১ মেগাওয়াট হয়েছে। আগে যেখানে দেশের মোট জনসংখ্যার ৪৭ শতাংশ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় ছিল, এখন তা বেড়ে ৮০ শতাংশ হয়েছে।

বাংলাদেশে এখন চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পিডিবি৷ পিডিবির তথ্য মতে, ২০০৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত অর্থাৎ গত আট বছরে বিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষমতা ৬১ ভাগ বেড়েছে৷

বিএনপি শাসনামলে বাংলাদেশে বিদ্যুতের ইতিহাসে দুইটি আলোচিত নাম চাঁপাইনবাবগঞ্জের ‘কানসাট’ ও ঢাকার শনির আখড়া৷ চাঁপাইনবাবগঞ্জের কানসাটে ২০০৬ সালের জানুয়ারি মাসে বিদ্যুতের দাবিতে ব্যাপক বিক্ষোভ ও আন্দোলনে শুরু হয়৷ এরপর এপ্রিল মাসে সেই আন্দোলনের সফল সমাপ্তি হয়৷ ওই আন্দোলনে জনতা ও পুলিশের সংঘর্ষে পুলিশের গুলিতে ২০ জন নিরীহ গ্রামবাসী নিহত ও শতাধিক আহত হয়৷ একই সময়ে ঢাকার শনির আখড়ায় বিদ্যুতের দাবিতে রাস্তায় নেমে সহিংস বিক্ষোভ করেন নগরবাসী৷ বিদ্যুৎ নিয়ে আন্দোলন পরবর্তী জাতীয় নির্বাচনেও প্রভাব ফেলে৷ ২০০৮ সালের নির্বাচনে তাই বিদ্যুৎ ছিল একটি প্রধান ইস্যু৷ ওই নির্বাচনে জয়ী আওয়ামী লীগ তাদের নির্বাচনি ইশতেহারে ২০২১ সালের মধ্যে দেশকে বিদ্যুতে স্বয়ংসম্পূর্ণ করার কথা বলেছিল৷ যা পূরণ করতে সক্ষম হলো সরকার।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *