Main Menu

ওবামার বিদায়ী ভাষণ শুনে অজ্ঞান সেনাসদস্য!

বাংলার দর্পন ডেস্কঃ – যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট এই কথাটি উচ্চারিত হলেই চোখে ভেসে ওঠে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিমান এক শাসকের ভাবচ্ছবি, যে শাসক তার ব্যক্তিত্ব, প্রভাব ও কর্মযজ্ঞের কারণে সারা দুনিয়ায় সব সময় ‘আলোচিত মানুষ’। কখনো-কখনো আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তার ভূমিকা তাকে বিতর্কিত ও ঘৃণিতও করে তোলে।
সেদিক থেকে বলা যায়, যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা কোনো প্রকার ঝাঁজালো বিতর্কের আবর্তে নিজেকে না জড়িয়ে অনেকটা সাচ্ছন্দেই একটানা আট বছর সময় পার করলেন। হোয়াইট হাউসের প্রতিটা কোনায় কোনায় জড়িয়ে আছে স্মৃতি।
ঐতিহ্যবাহী প্রেসিডেন্ট নিবাসে বারাক ওবামার মেয়াদ এবার শেষ। ‘গুডবাই’ বলার পালা। মন যে চায় না, তবুও…যেতে তো হবেই। সেই মতই সব ঠিক। ‘লাস্ট সাপার’ সেরে ফেলেছেন। ফার্স্ট লেডি আর মেয়েদের নিয়ে অন্যত্র বাসা বাঁধার পরিকল্পনা করেছেন।
টানা ৮ বছর বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ছিলেন বারাক ওবামা। শুধু প্রেসিডেন্টই নন, দেশটির সামরিক বাহিনীর প্রধানও ছিলেন তিনি। কিন্তু সময়ের নিয়মে ওবামাকেও চলে যেতে হবে ক্ষমতার বাইরে। তাই শেষবারের মতো সেনাবাহিনীর সঙ্গে বিদায়ী সাক্ষাতে মিলিত হন ওবামা। আর সেই অনুষ্ঠানে ওবামার বিদায়ী ভাষণ শুনে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন এক সেনাসদস্য।
জানা যায়, বুধবার ভার্জিনিয়ার আর্লিংটনে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় সেনাসদস্যদের উদ্দেশ্যে বিদায়ী বক্তৃতা দিচ্ছিলেন বারাক ওবামা। এর মধ্যেই জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন অন্যদের মতো সুশৃঙ্খলভাবে দাঁড়িয়ে থাকা ওই সেনা সদস্য।
মাটিতে পড়ে যাওয়া ওই সেনা সদস্যের ছবিও প্রকাশ পেয়েছে। সেখানে দেখা যায় সুশৃঙ্খল হয়ে দাঁড়িয়ে আছে অন্য সদস্যরা। আর নিচে পড়ে আছে ওই গার্ডের দেহ। পরে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়।
অনুষ্ঠানে সেনা সদস্যদের সেবা ও ত্যাগের প্রশংসা করে বারাক ওবামা বলেন, দেশ রক্ষায় আমাদের ইতস্তত থাকা উচিত না। কিন্তু তাই বলে আমাদের যুদ্ধে জড়িয়ে যাওয়া উচিত না। কারণ আপনাদের ক্ষতিকর এলাকায় পাঠানোর ব্যাপারটি সর্বশেষ অবলম্বন হওয়া উচিত, সর্বপ্রথম নয়।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *