Main Menu

মাইজভাণ্ডার শরীফে গাউসিয়া আহমদিয়া মনজিলের তাজকেরায়ে চেরাগে উম্মতে আহমদিয়া মাহফিল

 

মো. আলাউদ্দীন :

 

মাইজভাণ্ডার শরীফ গাউসিয়া হক মনজিলের সাজ্জাদানশিন রাহবারে আলম হযরত সৈয়দ মোহাম্মদ হাসান মাইজভাণ্ডারী (মজিআ) বলেছেন, গাউসুল আযম সৈয়দ আহমদ উল্লাহ মাইজভাণ্ডারীর (ক.) বেলায়তের সূতিকাগার মাইজভাণ্ডার শরীফ গাউসিয়া আহমদিয়া মনজিল এবং গাউসিয়া হক মনজিল।

 

বিশ্বঅর্লি শাহানশাহ্ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারীর (ক.) মহান বেলায়তের বিকাশ ও আধ্যাত্মিক কর্মকান্ডের ফলশ্রুতিতে প্রতিষ্ঠিত হয় গাউসিয়া হক মনজিল। বিশ্বঅলি শাহানশাহ্ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারীর (ক.) মহান পিতা অছিয়ে গাউসুল আযম হযরত সৈয়দ দেলাওয়ার হোসাইন মাইজভান্ডারী (ক.) ১৯৭৩ সনে গাউসিয়া হক মনজিল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বিশ্বঅলি শাহানশাহ্ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারী (ক.) কে নিজ অবস্থায় প্রতিষ্ঠা করে গেছেন। মাইজভাণ্ডারীর  আধ্যাত্মিক চেতনার উন্মেষ ঘটেছে গাউসিয়া আহমদিয়া মনজিল এবং গাউসিয়া হক মনজিলের নানাবিধ আধ্যত্মিক ও সেবামূলক কর্মোদ্যোগের মাধ্যমে। দুই মনজিলই মূলত গাউসুল আযম মাইজভান্ডারী র (ক.) আধ্যত্মিক পথনির্দেশনার আলোকে পরিচালিত হচ্ছে। দরিদ্র বঞ্চিত জনগোষ্ঠীর কল্যাণে এবং বহুমাত্রিক অর্থনৈতিক পদক্ষেপ গাউসিয়া হক মনজিল ও শাহানশাহ সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারী (ক.) ট্রাস্টের মাধ্যমে বাস্তবায়িত হচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

 

মাইজভাণ্ডার শরীফ গাউসিয়া আহমদিয়া মনজিল প্রাঙ্গণে গাউসুল আযম হযরত মাওলানা শাহ্ সুফি সৈয়দ আহমদ উল্লাহ মাইজভাণ্ডারী (ক.) ১১২তম ওরশ শরীফ উপলক্ষে তাজকেরায়ে চেরাগে উম্মতে আহমদিয়া মাহফিলে সভাপতির বক্তব্যে সৈয়দ মোহাম্মদ হাসান মাইজভাণ্ডারী (মজিআ) এ কথা বলেন। ১৬ জানুয়ারি মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত মাহফিলে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানের প্রারম্ভে পবিত্র কুরআন মাজীদ থেকে তেলাওয়াত করে মাদ্রাসা-এ-গাউসুল আযম মাইজভাণ্ডারী প্রাক্তন ছাত্র মুহাম্মদ একরাম হোসেন, নাতে রাসুল (দ:)মুহাম্মদ আরমান উদ্দিন, মাইজভাণ্ডারী কালাম পরিবেশন করে মুহাম্মদ নিজাম উদ্দিন। মাওলানা মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন ও মাওলানা মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেনের যৌথ সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এম. এন. আমিন, আরবি প্রভাষক মাওলানা মুহাম্মদ ফোরকান উদ্দিন, মাওলানা মুহাম্মদ নাজিমুল হক, মাওলানা মুহাম্মদ রফিক উদ্দিন, উম্মুল আশেকীন মুনাওয়ারা বেগম এতিমখানা ও হেফজখানার হেফজ বিভাগের শিক্ষক মাওলানা মুহাম্মদ আবুল কালাম, মাইজভান্ডারী একাডেমীর সদস্য মুহাম্মদ তরিকুল ইসলাম, মাদ্রাসার প্রাক্তন ছাত্র পরিষদের সভাপতি মুহাম্মদ আলী হায়দার। মিলাদ কিয়াম পরিচালনা করেন বিশ্বঅলি শাহান্শাহ হক ভাণ্ডারী রওজা শরীফের খাদেম এস.এম. সেলিম উল্লাহ।

 

অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফটিকছড়ি জামেউল উলুম মাদ্রাসার ভাইস প্রেন্সিপাল মাওলানা মুহাম্মদ তৈয়ব খান, নানুপুর এফ.এ. সুন্নিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মুহাম্মদ ফজলুল বারী, খিরাম কাদেরীয়া মঈনীয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মুহাম্মদ এরফানুল করিম, দক্ষিণ ধর্মপুর রহমানিয়া মুহাম্মদীয়া মাদ্রাসার সুপার মাওলানা ইসমাঈল ওসমানী, হযরত শাহজাহান শাহ মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মোহাম্মদ মুনসুর আলী। পরিশেষে সভাপতি মওলা হুজুর বিশ্ব মুসলিমের কল্যাণ কামনা করে মোনাজাতের মাধ্যমে মাহফিলের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *