Main Menu

খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতে কাল থেকে মাঠে অভিযান

 

ঢাকা : ভোক্তাদের জন্য খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আগামীকাল বুধবার থেকে স্যানিটারী ইন্সপেক্টররা মাঠ পর্যায়ে কাজ শুরু করবেন। দেশব্যাপী এ কাজে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রায় ছয়শ’ ইন্সপেক্টর রেস্টুরেন্ট, হাট, বাজার, খাদ্যসামগ্রী বিক্রি করে এমন দোকান পরিদর্শন ও প্রয়োজনে খাদ্য নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করবেন।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ডিএমসিএইচ) সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক এমপি এ কথা বলেন।

জাতীয় পুষ্টিসেবা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এ সংবাদ সম্মেলনে খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ, ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম চৌধুরীসহ মন্ত্রণালয় ও হাসপাতালের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আসন্ন রমজানকে সামনে রেখে দেশের প্রতিটি মানুষ যেন মানসম্মত খাবার পায়, সেদিকে নজর দিয়ে আগামীকাল বুধবার থেকেই সরকার ইন্সপেক্টরদের মাঠে পর্যায়ে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছে।

ইন্সপেক্টরদের এ অভিযান সারাবছরই অব্যাহত থাকবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার সরকার দেশের উন্নয়নের পাশাপাশি এখন খাদ্য নিরাপত্তার দিকে নজর দিয়েছে। কারণ সরকার মনে করে খাদ্যমান উন্নত করতে পারলে স্বাস্থ্যসেবার ওপর চাপ কমবে।

ভেজাল খাবারের কারণেই দেশের মানুষ ক্যান্সার, ডায়াবেটিস, কিডনি ও হার্টের সমস্যায় ভুগছে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, চিকিৎসাবাবদ সাধারণ মানুষের অর্থসাশ্রয় ও স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে সরকার খাদ্যের ভেজাল বিরোধী অভিযান হাতে নিয়েছে।

শেখ হাসিনার সরকার স্বাস্থ্যখাতের ব্যাপক উন্নয়ন করেছে উল্লেখ করে জাহিদ মালেক বলেন, বিগত ৫ বছরে সরকার এ খাতে ৫৩ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করেছে। এবারও স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়নে আশানুরূপ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

জাহিদ মালেক বলেন, যারা মানসম্মত খাবার বিক্রি করবে, ইন্সপেক্টররা তাদের অনুপ্রেরণা দেবে এবং যারা নিম্নমানের খাবার ভোক্তাদের হাতে তুলে দিবে, তাদের বিরুদ্ধে তারা ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

তিনি বলেন, মানহীন বা নিম্নমানের খাবার বিক্রি ও পরিবেশনের জন্য ৬ মাস থেকে সর্বোচ্চ ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড এবং সর্বোচ্চ ২০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রেখে আইন করা হয়েছে। সরকারের কাছে জনগণের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা আগে, তাই সরকার এ আইন প্রয়োগে কোন কার্পণ্য করবে না বলেও তিনি জানান।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *