Main Menu

সোহরাওয়ার্দীর জনসমাবেশে ডিএমপির ৫ শর্ত ভঙ্গ করেছে বিএনপি

নিউজ ডেস্ক: সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসমাবেশে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) বিএনপিকে যে সুনির্দিষ্ট ২২টি শর্ত দিয়েছিলো সেগুলোর মধ্যে অন্তত ৫টি শর্তই ভঙ্গ করেছে বিএনপি। ফলে পরবর্তীতে যদি বিএনপি আবারও কোনো জনসমাবেশের অনুমতি চায় তবে ডিএমপি তা দেয়া থেকে বিরত থাকবে। কেননা শর্তগুলোর বিবরণীতে উল্লেখ রয়েছে, এসব শর্তের বাইরে যদি কোনো ঘটনা ঘটে তবে কারণ দর্শানো ছাড়াই কর্তৃপক্ষ এ অনুমতি বাতিল করতে পারবে।

ডিএমপির দেয়া ৫ নম্বর শর্ত অনুযায়ী, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের অভ্যন্তরে জনসভার কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখার কথা বলা হলেও বিএনপির অধিকাংশ সমর্থকদের উদ্যানের বাইরে ও রমনা পার্কের ভেতর জড়ো হতে দেখা যায়। সেখানেও বিচ্ছিন্নভাবে বক্তৃতা দিতে দেখা যায়। এমনকি সোহরাওয়ার্দী থেকে শাহবাগের সড়কে শোডাউন করতে দেখা যায়।

ডিএমপির দেয়া ৯ নম্বর শর্তে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় ভেহিক্যাল স্ক্যানার (যানবাহন তল্লাশি) সার্চ মিরর-এর মাধ্যমে জনসভাস্থলে আগত সকল যানবাহন তল্লাশির ব্যবস্থা করার কথা হলেও সেটি করেনি বিএনপি। তল্লাশি ছাড়াই সবার গাড়ি ঢুকছে উদ্যানে।

ডিএমপির দেয়া ১৩ নম্বর শর্তে উল্লেখ ছিলো- অনুমোদিত স্থানের বাইরে, রাস্তায় বা ফুটপাতে লোক সমাগম করা যাবে না। তবে বিএনপি সমর্থকরা শাহবাগ, মৎসভবন, ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউট, রমনা পার্ক এলাকার সড়ক ও ফুটপাথেও অবস্থান নেয়।

ডিএমপির ১৮ নং শর্ত অনুযায়ী অনুমোদিত সময়ের পূর্বে কিংবা পরে রাস্তায় কোনো অবস্থাতেই সমবেত হওয়া যাবে না ও যান চলাচলে কোনো প্রকার প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা যাবে না। ২০ নম্বরে মিছিল করে সমাবেশে আসা যাবে না বলে উল্লেখ করা হলেও সেটিও মানা হচ্ছে না। বিএনপির নেতাকর্মীদের ভিড়ে মৎস্যভবন থেকে শাহবাগ সড়কে কোনো যান চলাচল করছে না। শাহবাগ থেকে মৎস্যভবন সড়কটিতে দীর্ঘ যানজট দেখা গেছে।

ডিএমপি কর্তৃক বিএনপির সমাবেশ ২২টি শর্তের ১৯ নম্বর শর্তে উল্লেখ রয়েছে, সমাবেশে কোনো ধরণের লাঠি-সোটা/ব্যানার, ফেস্টুন বহন অথবা আড়ালে লাঠি, রড ব্যবহারে নিষেধ। এমন শর্তের প্রেক্ষিতে জনসমাবেশ লাঠি-সোটামুক্ত থাকার কথা থাকলেও সমাবেশে লাঠিসোটার উপস্থিতি গণমাধ্যমের ছবিতে ফুটে উঠেছে।

অনুমতি পেয়েও শর্ত ভঙ্গ করায় বিএনপি কোনো শাস্তি পেতে পারে কিনা সে বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একজন ঊধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, বিএনপিকে যে ২২টি শর্ত দেয়া হয়েছিলো সেসব শর্তের পাশাপাশি শর্ত ভঙ্গ করলে কিছু শাস্তির কথাও উল্লেখ রয়েছে। সেসব তাদের পেতে হবে। এছাড়া পরবর্তী কোনো সভা-সমাবেশে ডিএমপির অনুমতি পাওয়া অত্যন্ত কঠিন হবে।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *