Main Menu

সোনাগাজীর জলদস্যু কালামের উত্থান-পতন

সৈয়দ মনির আহমদ:

র‌্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে সোনাগাজীর উপকুলীয় অঞ্চলের শীর্ষ জলদস্যু কমান্ডার আবুল কালাম প্রকাশ ভাগিনা কালাম ওরপে ডাবল কালাম(৩৩) নিহত হয়েছে। শুক্রবার রাত ৮টার সময় উপজেলার চরদরবেশ ইউনিয়নের উপকুলীয় ইতালি মার্কেট সংলগ্ন আলমের দোকান নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে।
র‌্যাব জানায়, অস্ত্রসহ একদল সন্ত্রাসী উপকুলীয় অঞ্চলে জড়ো হয়েছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার রাত পৌনে ৮টার সময় ওই স্থানে অভিযান চালায় র‌্যাব। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে সন্ত্রাসীরা গুলিবর্ষন শুরু করলে আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। গোলাগুলির একপর্যায়ে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে গেলেও আহতবস্থায় কালামকে আটক করা হয়। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে ১টি বিদেশী পিস্তল, ১টি রিভলবার, ১টি ওয়ান সুটারগান , ১ টি শর্টগান, ২টি রামদা, ২টি চুরি ও ১১ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। গুলিবিদ্ধবস্থায় আটক   কালাম কে চিকিৎসার জন্য সোনাগাজী হাসপাতালে ভর্তি করালে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষণা করে। গোলাগুলির সময় তিন র‌্যাব সদস্য আহত হয়েছেন জানিয়েছেন র‌্যাব-৭ ফেনী ক্যাম্পের কমান্ডার স্কোয়াড্রন লিডার শাফায়াত জামিল ফাহিম।
ভাগিনা কালাম চরদরবেশ ইউনিয়নের উত্তর চরদরবেশ গ্রামে আবুল হাশেম প্রকাশ মোঃ হোসেনের ছেলে। সে ১ কন্যা ও ২ ছেলে সন্তানের জনক। উপজেলা যুবদলের সভাপতি জসিম উদ্দিন জানান, কালাম কখনো যুবদলের কোন কমিটিতে ছিলেন না।
স্থানীয়রা জানান, ২০০১ সালে চর ইঞ্জিমান গ্রামে প্রকাশ্যে ৭টি হত্যাকান্ড ,২৫ টি বাড়ী ডাকাতী , বাজারে ডাকাতী ও অগ্নিসংযোগের পর থেকে   সোনাগাজীর উপকুলীয় অঞ্চলে মুর্তিমান আতংক ছিলেন বাগিনা কালাম ও তার বাহিনী। প্রায় ৫০ জন ডাকাতের সমন্বয়ে গঠিত তার বাহিনী  প্রকাশ্যে ডাকাতী , চাদাবাজী , মানুষ খুন, ভুমি দখল  করতো ।

বিএনপি রাজনীতির অনুসারী হলেও তার নৃসংশতা থেকে বিএনপির নেতাকর্মীরাও রক্ষা পায়নি। তার হাতে সবচেয়ে বেশী হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছে আওয়ামীলীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী এবং উপকুলীয় মৎসজীবি সম্প্রদায়। তার বিরুদ্ধে যুবদল কর্মী জসিমকে গাছের সাথে ঝুলিয়ে হত্যা, যুবলীগ নেতা ইমাম হোসেন বল্টন কে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা, যুবলীগ নেতা জসিম কে গলাকেটে হত্যা, উড়িরচরের জলদস্যু হারিছ কে টুকরো টুকরো কওে হত্যা, সোনাগাজীর সদরের বাবুল ডাকাত কে হাত পা বেধেঁ নদীতে ফেলে দিয়ে হত্যাসহ ২০ টি হত্যাকান্ডের অভিযোগ রয়েছে।

এছাড়াও আওয়ামীলীগ নেতা কালাম মাঝির এক পা কেটে পঙ্গু করা, যুবদল কর্মী জসিমের পায়ের রগ কেটে পঙ্গু করা, বিএনপি নেতা খোকনের হাত কেটে পঙ্গু করা, আওয়ামীলীগ নেতা মহিউদ্দিন মাঝির এক হাত ও এক পা ভেঙ্গে পঙ্গু করা ও আওয়ামীলীগ নেতা হোসেনের হাত পায়ের রগকেটে পঙ্গু করা, যুবদল কর্মী হাসানের দুই পা ভেঙ্গে চিরতরে পঙ্গু করা সহ অর্ধশত মৎসজীবিকে গুরতর আহত করার অভিযোগ রয়েছে। উপকুলীয় জেলেদের কাছ থেকে নিয়মিত চাঁদা আদায়, ডাকাতি, গরু মহিশ লুট করা ছিলো বাগিনা কালাম বাহিনীর নিত্যনৈমিত্তিক বিষয়।

অস্ত্রসহ একাধিকবার গ্রেফতার হলেও সোনাগাজীর প্রভাবশালী কয়েকজন রাজনৈতিক ব্যাক্তির সহায়তায় সে অল্প কিছুদিন কারাভোগেরর পর মুক্তিলাভ করে। ২০১৫ সালে পুলিশ তাকে গ্রেফতারের জন্য ইতালি মার্কেটে অভিযান চালালে তার বাহিনীর হামলায় বহু পুলিশ সদস্য আহত হয়। ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পুর্বে সে উপজেলা বিএনপির এক নেতা ও  উপজেলা যুবদলের এক নেতার পৃষ্ঠপোষকতায় চর দরবেশ ও চর ছান্দিয়া ইউনিয়নে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। সে সময় তার বাহিনীর সদস্যদের প্রকাশ্য অস্ত্র মহড়ার ছবি গনমাধ্যমে প্রকাশিত হলে তোলপাড় চলে স্থানীয় প্রশাসনে।

গত কয়েক মাস যাবৎ সে ছোট ফেনী নদী থেকে বেআইনিভাবে বালু উত্তোলন করে আসছিল। সেই বালু মহালের পাশেই শুক্রবার রাতে বন্দুক যুদ্ধে কালাম নিহত হয়। তার নিহতের খবর জানাজানি হলে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ও এলাকাবাসীকে স্বস্তি প্রকাশ করতে দেখা যায়। ইতিপূর্বে র‌্যাবের ক্রসফায়ারে উপকুলীয় জলদস্যু যুবলীগ কর্মী আনোয়ার হোসেন মিন্টু, যুবদল কর্মী গাব্বা মাসুদ নিহত হয়।
কালামের পরিবার জানান, সে সাধারন দিন মজুর ছিল।

স্থানীয় বিএনপির নেতারা নিজেদের স্বার্থে কালামের হাতে অবৈধ অস্ত্র তুৃলে দিয়েছিল।  এলাকাবাসী জানান, এখানকার জলদস্যু কমান্ডার নিহতের পর দ্রুত অন্যজন দায়ীত্বে আসবে। প্রশাসন সময়মত ভাগিনা কালামের সহযোগী , রফিক , শেখ ফরিদ,
আকবর, আবু ছুফিয়ান মাষ্টার, আলাউদ্দিন , জসিম ও  ফজলুর বিরুদ্ধে দ্রুত প্রদক্ষেপ নিলে তারা পুনরায় সংগঠিত হতে পারবেনা।
র‌্যাবের উপর হামলা ও অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় বাদী হয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় দুইটি মামলা দায়ের করেছে র‌্যাব।
সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মোঃ হুমায়ূন কবির জানিয়েছেন, ভাগিনা কালামের বিরুদ্ধে কোম্পানীগঞ্জ, মিরসরাই ও সোনাগাজী মডেল থানায় হত্যা, ধর্ষন, চুরি, ডাকাতি, চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপরাধে প্রায় ৩০ টি মামলা রয়েছে ।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *