অধ্যক্ষের বাড়িতে চেয়ারম্যানের হামলা

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি :
কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার বড়ভিটা কলেজের পরিচালনা কমিটির সভাপতি হতে না পেরে গভীর রাতে দলবল নিয়ে অধ্যক্ষের বাড়িতে হামলা করার অভিযোগ উঠেছে বড়ভিটা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মিন্টুর বিরুদ্ধে।

তিনি উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের বড়ভিটা গ্রামের বাসিন্দা ও বড়ভিটা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন সরকারের ছেলে। এ ঘটনায় নিজের ভবিষ্যৎ নিরাপত্তার জন্য বড়ভিটা মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ নুর মোহাম্মদ মিয়া ২৫ মে বুধবার ফুলবাড়ী থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। তিনি উপজেলার সদর ইউনিয়নের চন্দ্রখানা গ্রামের মৃত কেরামত আলীর ছেলে।

জানা গেছে, কুড়িগ্রাম -২ আসনের সংসদ সদস‍্য আলহাজ্ব পনির উদ্দিন আহমেদ উপজেলার চন্দ্রখানা গ্রামের বাসিন্দা ও ফুলবাড়ী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম রব্বানী সরকারের ছেলে সরকার মনোয়ার পাশাকে বড়ভিটা মহাবিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি করার জন‍্য ডিও লেটার দেন।

তারই প্রেক্ষিতে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, দিনাজপুর গত ১৭ মে ২০২২ তারিখে সরকার মনোয়ার পাশাকে অত্র কলেজের সভাপতি হিসেবে মনোনয়ন দেন। তাকে সভাপতি করায় চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মিন্টু অধ্যক্ষ নুর মোহাম্মদ মিয়ার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন।

এর সূত্র ধরে আতাউর রহমান মিন্টু ২৪ মে দিবাগত রাত আনুমানিক সাড়ে ১২ টার দিকে ২০/২৫ জন লোক নিয়ে সভাপতির বিষয়ে কথা বলতে অধ্যক্ষের বাড়িতে যান। গভীর রাতে এতসংখ্যক লোক দেখে অধ্যক্ষ নুর মোহাম্মদ মিয়া ঘর হতে বের হননি। এ সময় চেয়ারম্যান অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে অধ্যক্ষকে ঘরের বাহির হতে বলেন এবং লোকজন সহ ঘরের দরজায় লাথি মারতে থাকেন।

এমন পরিস্থিতিতে ওই অধ্যক্ষ ভীতসন্ত্রস্থ হয়ে ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জকে বিষয়টি অবগত করলে চেয়ারম্যান ও তার লোকজন অধ্যক্ষকে তীব্র গালিগালাজ করে তাকে প্রাণ নাশের হুমকি দিয়ে সেখান থেকে চলে যায়। এমন ঘটনায় অধ্যক্ষ নুর মোহাম্মদ মিয়া ওই চেয়ারম্যান ও তার লোকজনের দ্বারা অপূরনীয় ক্ষতির আশংকায় রয়েছেন বলে সাধারণ ডায়েরিতে উল্লেখ করেন।

বুধবার বিকালে ঘটনা সরেজমিনে তদন্তে আসেন ফুলবাড়ী থানার এসআই রাহাত আলম। তিনি বলেন, ঘটনাটির তদন্ত কাজ এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে আছে। তদন্ত কাজ পুরোপুরি শেষ করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *