Main Menu

কেশবপুরে লকডাউনের দ্বিতীয় দিনেও কঠোর অবস্থানে উপজেলা প্রশাসন : ১৯ব্যক্তিকে জরিমানা

এস কে আর সুমন, যশোর :
কেশবপুরে সাতদিনের কঠোর বিধি নিষেধ উপজেলা শহরের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে কঠোর অবস্থান নেন উপজেলা প্রশাসন। রাস্তার মোড়ে মোড়ে পুলিশ টহল দিচ্ছে। অতি প্রয়োজন ছাড়া মানুষ ঘর থেকে বের হচ্ছে না।

পৌর শহর সহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের বাজারে মানুষের যাতায়াত ছিল অন্যদিনের চেয়ে খুবই কম। বিধি নিষেধ চলাকালে জেলা প্রশাসনের নির্দেশক্রমে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশের পক্ষ থেকে সব ধরনের বিধি নিষেধ মেনে চলার ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। তারই ধারা বাহিকতায় লগডাউনের দ্বিতীয় দিনে সরকার ঘোষিত বিধি নিষেধ অমান্য করে ঘোরাফেরা ও ব্যবসা পরিচালনার করার অপরাধে কেশবপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ১৯ ব্যক্তিকে জরিমানা করা হয়েছে। পৃথক পৃথক ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এম এম আরাফাত হোসেন ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ইরুফা সুলতানা।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকালে কেশবপুর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম এম আরাফাত হোসেন ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে আতিয়ার রহমানকে ১ হাজার ৫০০ টাকা, সিরাজুল ইসলামকে ১০০০ টাকা, সাকিব হোসেনকে ৪০০ টাকা, তুহিনুর ইসলামকে ৩০০ টাকা, আবু বক্করকে ৩০০ টাকা, আকবার আলীকে ৩০০ টাকা, বেলাল হোসেনকে ৫০০ টাকা, হুমায়ন কবিরকে ৫০০ টাকা, সুমন দে’কে ৫০০ টাকা, নাজমুল হককে ৫০০ টাকা, জাহিদুল ইসলামকে ৫০০ টাকা জরিমান করা হয়।

অপর দিকে বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইরুফা সুলতানা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে হযতর আলীকে ১০০০ টাকা, শহিদুল ইসলামকে ১০০০ টাকা, আব্দুর রহমানকে ৫০০ টাকা, সিরাজুল ইসলামকে ২০০ টাকা, মুক্তার আলীকে ২০০ টাকা, রাহাত জান মোড়লকে ২০০ টাকা, মুনছুর আলীকে ২০০ টাকা ও মফিজুর রহমানকে ২০০ টাকা জরিমানা করা হয়। সর্বমোট ১৯ টি মামলার বিপরীতে নয় হাজার ৮০০ টাকা জরিমানা করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালাত পরিচালনার সময় কেশবপুর থানা পুলিশ সহযোগিতা করেন।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *