Main Menu

নারীর ভ্যানিটি ব্যাগ ছিনতাই, সিলেটে দুই ছাত্রলীগ নেতা রিমান্ডে

সিলেট ব্যুরো:: সিলেটে এক নারীর টাকা ও চেকবইসহ ভ্যানিটি ব্যাগ ছিনতাইয়ের ঘটনায় দুই ছাত্রলীগ নেতাকে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

তারা হলেন- সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক জয়নাল আবেদীন ডায়মন্ড ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সারোয়ার হোসেন চৌধুরী। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে দুজনই ছিনতাইয়ের জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, গত সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টায় জনৈক ফাতেমা আক্তার নিজ বাসা হতে নগরীর বন্দরবাজার যাওয়ার পথে নয়াসড়কে মাহা মার্কেটের সামনে পৌঁছামাত্র সারোয়ার ও ডায়মন্ড মোটরসাইকেল যুগে এসে তার গতিরোধ করে। এসময় তারা ধারালো চাকু দিয়ে ভয়-ভীতি দেখিয়ে ফাতেমার সঙ্গে থাকা ভ্যানিটি ব্যাগটি ছিনিয়ে নিয়ে নগরীর জেল রোডের দিকে পালিয়ে যায়।

ব্যাগের মধ্যে বিশ হাজার টাকা, একটি সিম্ফনি মোবাইল ফোন, চেক বই ও জাতীয় পরিচয়পত্র ছিল। ঘটনার বিষয়ে ফাতেমা সিলেট মহানগর পুলিশের (এসএমপি) কোতোয়ালী মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। জিডির সূত্র ধরে থানার এসআই ইবাদুল্লাহ ঘটনাস্থল ও আশেপাশের সিসিটিভির ফুটেজ পর্যালোচনা করে আসামিদের শনাক্ত করেন।

পুলিশের একটি টিম নগরীর চৌকিদেখী এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে বিশ্বনাথ উপজেলার দশঘর গ্রামের মৃত মাসুক মিয়ার ছেলে ও নগরীর চৌকিদেখী এলাকার বাসিন্দা ছাত্রলীগ নেতা জয়নাল আবেদীন ডায়মন্ডকে নিজ বাসা থেকে গ্রেফতার করা হয়। ডায়মন্ডের দেয়া তথ্য মতে ১নং আসামি বিয়ানীবাজার উপজেলার খাকুরা গ্রামের মৃত মইনুল হক চৌধুরীর ছেলে ও নগরীর শাহজালাল উপশহরের ই-ব্লকের বাসিন্দা ছাত্রলীগ নেতা সারোয়ার হোসেন চৌধুরীকে নিজ বাসা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

সারোয়ার প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে এবং ছিনতাই হওয়া বিশ হাজার টাকার মধ্যে ৮ হাজার টাকা নিজের প্যান্টের পকেট থেকে বের করে দেয়। সারোয়ারের কাছ থেকে নগদ ৮ হাজার টাকা ও ছিনতাইয়ের কাজে ব্যবহৃত একটি লাল রঙের হাঙ্ক মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সোবহানীঘাট পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই বিমল চন্দ্র দে আসামিদের আদালতে হাজির করে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এসব তথ্য নিশ্চিত করে এসএমপির কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি সেলিম মিঞা যুগান্তরকে বলেন, ছিনতাইয়ের শিকার হওয়া নারীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তদন্তে নামে পুলিশ। ওই এলাকার সিসিটিভি ফুটেজ দেখে ডায়মন্ড ও সারোয়ারকে শনাক্ত করা হয়। পরে তাদের দুজনকেই গ্রেফতার করা হয়।

উল্লেখ্য, ছাত্রলীগ নেতা সারোয়ার হোসেনের নামে কোতোয়ালী থানায় ১টি, শাহপরান (রহ:) থানায় ১টি এবং জয়নাল আবেদীন ডায়মন্ডের নামের শাহপরাণ থানায় ২টি ও কোতোয়ালী থানায় ১টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

শেয়ার করুনঃ





Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *