Main Menu

খালেদা জিয়াকে অকার্যকর রেখে ক্ষমতা চান মির্জা ফখরুল ও মওদুদ আহমেদ!

নিউজ ডেস্ক: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে জেলে আছেন বেগম জিয়া। তার জন্য তৃণমূল নেতাকর্মীরা আন্দোলন করতে চাইলেও মির্জা ফখরুল ও মওদুদ সাহেব বারবার সুকৌশলে তাদেরকে বিভিন্নভাবে আন্দোলন থেকে ঘুরিয়ে দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। কিন্তু দলের সাধারণ নেতাকর্মীরা এর রহস্য বের করতে না পারলেও মির্জা ফখরুল ও মওদুদ আহমেদের জোরালো আন্দোলনের দিকে না যাওয়ার কারণ প্রকাশ হয়ে পড়তে শুরু করেছে।

এক গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, মির্জা ফখরুল ও মওদুদ আহমেদ চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ছাড়াই নির্বাচনে যাবেন এমন পরিকল্পনা আঁকতে শুরু করেছেন এবং সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের পথে অগ্রসর হচ্ছেন। আর এই বিষয়ে তাদের সাথে একমত পোষণ করে অনেক সিনিয়র নেতাই গোপনে তাদের মদদ দিয়ে যাচ্ছেন। তবে তারেক-রিজভীপন্থীদের বিরোধীতা ও অসহযোগিতার কারণে তা প্রকাশ্য রূপ নিতে পারছে না।

তারেক জিয়া লন্ডনে পালিয়ে আছেন। খালেদা জিয়া জেলে থাকুক বা বিদেশে চলে যান, তাকে অকার্যকর করে রেখে এই সুযোগে যদি দলকে জিয়া পরিবার থেকে মুক্ত করা না যায় তাহলে মির্জা ফখরুল, মওদুদ আহমেদের মতো নেতারা আর কখনোই দলে নিজেদের অবস্থান শক্ত করতে পারবে না বলেই মনে করেন তারা। তাই এ সুযোগ কাজে লাগানোর সর্বোচ্চ চেষ্টার অংশ হিসেবে সরকারের সঙ্গে যোগসাজশে সমঝোতার মাধ্যমে বেগম জিয়াকে বাইরে পাঠানো অথবা বাকি জীবন জেলে রাখার চেষ্টাই করে যাচ্ছেন তারা।

জানা যায়, বেগম জিয়াকে যদি চিকিৎসার অজুহাতে বিদেশে পাঠানো না যায় তবে তাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা হবে তারেক জিয়াকে প্রলোভন দেখিয়ে যেভাবে হোক দেশে আনা। সেক্ষেত্রে সরকারের সাথে যোগসাজশের মাধ্যমে তার জামিন বা সাজা মওকুফের ব্যবস্থা করে তাকে দেশে এনে জেলে ঢোকানোর চেষ্টা করা।

মূলত বিভিন্ন অজুহাতে বেগম জিয়া ও তারেক রহমানকে দলে স্থায়ীভাবে অকার্যকর রেখে তাদের ইমেজকে কাজে লাগিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে ক্ষমতায় যেতে না পারলেও বিরোধী দলের প্রধান বা গুরত্বপূর্ণ ও সম্মানজনক অবস্থানে প্রতিষ্ঠিত হবার উদ্দেশ্যেই মির্জা ফখরুল ও মওদুদ আহমেদ এগিয়ে যাচ্ছেন বলে সূত্রটি নিশ্চিত করেছে।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *