Main Menu

প্যারোলে মুক্তির প্রক্রিয়া শুরু : খালেদাকে লন্ডনে নিয়ে যেতে ঢাকায় শর্মিলা

 

নিউজ ডেস্কঃ

বেগম জিয়ার প্রয়াত ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী এখন ঢাকায়। বৃহস্পতিবার রাতে সৈয়দা শর্মিলা রহমান সিথি

ঢাকায় আসেন।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে তিনি তাঁর কারাবন্দী শাশুড়ির সঙ্গে দেখা করেছেন। রাতেই সিথি বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে কথা বলেন।

একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে, বেগম খালেদা জিয়াকে সঙ্গে করে লন্ডনে নিয়ে যেতেই কোকোর স্ত্রী ঢাকায় এসেছেন। আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই বেগম জিয়ার প্যারোলে মুক্তির প্রক্রিয়া শুরু হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র গুলো জানায়, শুক্রবার বিকেল সাড়ে তিনটায় শর্মিলা রহমান সিথি নাজিমউদ্দিন রোডের কারাগারে বেগম জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এসময় বেগম জিয়া বিদেশে যাওয়া নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।

সূত্র মতে, সিথিকে বেগম জিয়া কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন। এই নির্দেশনা অনুযায়ী সিথি বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তির ব্যাপারে পদক্ষেপ নেবেন।

খালেদা জিয়ার কোনও অসুস্থতা নেই, অসুস্থতা রাজনৈতিক

আদালত থেকে বেরিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াবিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বাড়িতে থাকা অবস্থায় তার শারীরিক অবস্থা যেমন ছিল, কারাগারে তার চেয়ে উন্নতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন কারা চিকিৎসক। তিনি সুস্থ আছেন; তাকে বিদেশে পাঠানোর দরকার নেই বলেও জানিয়েছেন এই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক।

শনিবার কেন্দ্রীয় কারাগারের মেডিক্যাল অফিসার মো. মাহমুদুল হাসান শুভ খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে এসব কথা বলেন।

মো. মাহমুদুল হাসান বলেন, ‘খালেদা জিয়ার কোনও অসুস্থতা নেই। তার সবকিছুই স্বাভাবিক রয়েছে। তিনি বর্তমানে কোন ওষুধও খাচ্ছেন না। আমরা চেকআপ করে তার কোনও অসুস্থতা পাইনি।’

বিএনপির পক্ষ থেকে গত শনিবার (২৪ মার্চ) খালেদা জিয়াকে বিদেশ নিয়ে উন্নত চিকিৎসা দেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়।

খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়ার প্রয়োজন আছে কিনা জানতে চাইলে মো. মাহমুদুল হাসান বলেন, ‘কারা কী বললো সে বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারবো না। তবে তাকে (খালেদা জিয়া) বিদেশ নিয়ে চিকিৎসা দেওয়ার মতো কোনও অবস্থার সৃষ্টি হয়নি।’ খালেদা জিয়ার রক্তচাপ, সুগার সব ঠিক আছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

কারাগারের এই মেডিক্যাল অফিসার বলেন, ‘তিনি বাইরে যে শারীরিক অবস্থায় ছিলেন, বর্তমানে তার চেয়ে ভালো আছেন।’

অপর এক কারা চিকিৎসক বলেন, ‘খালেদা জিয়ার জন্য ২৪ ঘণ্টা কারাগারে একজন চিকিৎসক থাকেন। রাতে কেবল তার জন্যই একজন চিকিৎসক কারা ফটকের একটি কক্ষে ঘুমান। তার পাশের রুমেই একজন নার্স থাকেন সারাক্ষণ। চিকিৎসক ও নার্স খালেদা জিয়ার জন্য ২৪ ঘণ্টা থাকেন।’ কারাগারের ভেতর নিয়মিত খালেদা জিয়া হাঁটাচলা করেন বলেও জানান তিনি।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট্র দুর্নীতির মামলার রায়ে খালেদা জিয়ার পাঁচ বছর সাজা হয়েছে। গত ৮ ফেব্রুয়ারি ওই রায় ঘোষণার দিন বিকাল থেকে নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে আছেন তিনি।

গত শনিবার বিএনপির মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দেশের বাইরে পাঠিয়ে চিকিৎসার অনুরোধ জানান।

এর জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘খালেদা জিয়া অসুস্থ হলে তার সুচিকিৎসার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রয়োজন হলে খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে গিয়েও চিকিৎসা করানো হবে।’






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *