Main Menu

যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে অবস্থান নেয়া সেই লর্ড কার্লাইল খালেদার আইনজীবী!

 

নিউজ ডেস্ক: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় কারাদণ্ডপ্রাপ্ত বেগম জিয়ার মামলা পরিচালনায় একজন বিদেশি আইনজীবীকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সেই আইনজীবীর নাম লর্ড কার্লাইল। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, লর্ড কার্লাইল হলেন সেই ব্যক্তি যিনি বাংলাদেশে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের বিরুদ্ধে যুক্তরাজ্যে সোচ্চার ছিলেন।

এছাড়া আরো জানা যায়, পোল্যান্ড থেকে যুক্তরাজ্যে অভিবাসিত ইহুদি আইনজীবী লর্ড কার্লাইল শুধু বাংলাদেশে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের কঠোর সমালোচকই নন, তিনি হলেন প্রতারণা ও ইহুদি রাষ্ট্র ইসরায়েলের স্বার্থরক্ষায় দেশদ্রোহী কর্মকাণ্ডের জন্য কারাদণ্ডপ্রাপ্ত ও বিতর্কিত সাংবাদিক সালাউদ্দিন শোয়েব চৌধুরীর পৃষ্ঠপোষক ও বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক উস্কানি সৃষ্টির মাধ্যমে বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বিনষ্টকারী এবং বিএনপির পেইড লবিস্ট রিচার্ড বেনিনের ঘনিষ্ঠ আরেক লবিস্ট। লর্ড কার্লাইল ২০১২ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের বিরুদ্ধে যুক্তরাজ্যে নানা সভা, সেমিনার এবং ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে দূতিয়ালির চেষ্টা করেছিলেন।

২০১৩ সালে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের ‘নিরপেক্ষতা এবং ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় ব্যর্থতার’ জন্য আন্তর্জাতিক তদন্ত দাবি জানিয়েছিলেন এই লর্ড কার্লাইল। জেনেভাস্থ ইউনাইটেড নেশনস হাই কমিশন ফর হিউম্যান রাইটস- এর হাইকমিশনার নাভি পিল্লাই বরাবর লিখিত এক চিঠিতে তিনি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিচারের ক্ষেত্রে জাতিসংঘের হস্তক্ষেপও চেয়েছিলেন।

আলবদর নেতা মুহাম্মদ কামারুজ্জামানের ফাঁসি কার্যকর না করার দাবিতে যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশ হাইকমিশনারের কাছে চিঠিও লিখেছিলেন ব্রিটিশ এই আইনজীবী। ২০১৫ সালে বিএনপি-জামায়াত জোটের আন্দোলন চলাকালে বাংলাদেশে ‘গ্রহণযোগ্য’ সরকার গঠনে উদ্যোগ নিতে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থাকেও অনুরোধ করেছিলেন লর্ড কার্লাইল।

মির্জা ফখরুল জানান, ‘লর্ড কার্লাইল এখন থেকে খালেদার পক্ষে মামলায় পরামর্শ দেবেন। তিনি দীর্ঘ অনেক বছর যাবৎ আইনি পেশা ও রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। প্রখ্যাত এ আইনজীবী হাউজ অব লর্ডসের সদস্য।’ লর্ড কার্লাইল মূলত কী বিষয়ে কাজ করবেন- জানতে চাইলে ফখরুল বলেন, ‘তিনি খালেদা জিয়ার মামলায় আইনি পরামর্শের সাথে সাথে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ঠিক থাকছে কী না তা দেখভাল করবেন। এছাড়াও তিনি বেগম জিয়ার মামলার আইনি বিষয়ের সব দিক দেখাশুনা করবেন।’

দেশে আন্তর্জাতিক মানের অনেক আইনজীবী থাকা সত্ত্বেও ব্রিটিশ এ আইনজীবীকে কেন নিয়োগ দেয়া হয়েছে জানতে চাইলে ফখরুল বলেন, ‘বিশ্ব সম্প্রাদায়ের কাছে খালেদা জিয়ার মামলা ও সাজার বিষয়ে তুলে ধরতে কাজ করবেন লর্ড কার্লাইল।’ তাই সমালোচকরাও বলছেন, আইনি সহায়তার কথা বললেও আইনগতভাবে বেগম জিয়াকে কারামুক্ত করতে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি লর্ড কার্লাইলকে মূলত বেগম জিয়ার মুক্তির পক্ষে কাজ করতে লবিস্ট হিসেবেই নিয়োগ দিয়েছে।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *