Main Menu

কোনো অপরাধ নেই, গায়ের জোরে বিচার করছে সরকার – খালেদা জিয়া

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮।

লা মেরিডিয়ান হোটেলে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির বর্ধিত সভায় বক্তব্য রাখছেন দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দাবি করেছেন তার কোনো অপরাধ নেই, গায়ের জোরে বিচার করছে সরকার। বিএনপিকে হামলা করে মামলা দিয়ে দমিয়ে রাখা যাবে না। আমাদের সম্পর্ক মাটি ও মানুষের সঙ্গে। জোর জবরদস্তি করে স্বার্থ আদায় হবে, কিন্তু ভোট পাওয়া যাবে না।

শনিবার দুপুরে লা মেরিডিয়ান হোটেলে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির বর্ধিত সভায় সভাপতিত্বের বক্তৃতাকালে তিনি এ কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় রায় দেবেন ঢাকার পাঁচ নম্বর বিশেষ জজ আদালত।

এ রায়কে ঘিরে রাজনৈতিক উত্তেজনার মধ্যেই আজ বেলা ১১টা ১০ মিনিটে লা মেরিডিয়ান হোটেলের ১৪ তলার গ্র্যান্ড বল রুমে বিএনপির নির্বাহী কমিটির বর্ধিত সভা শুরু হয়।

সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা, সব জেলার সভাপতি ও নির্বাহী কমিটির ৫০২ জন সদস্যসহ অন্তত সাতশ নেতা উপস্থিত আছেন।

সভাপতির বক্তব্যে খালেদা জিয়া বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর হামলা-মামলাসহ নির্যাতনের অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, আমি কোর্টে যেতাম। তারা আমার সঙ্গে যেত। তারা জ্বালাও-পোড়াও ভাঙচুর করেনি। তবু তাদের নামে মামলা দেয়া হয়েছে। ঘরে ঘরে গিয়ে আটক করা হচ্ছে। অথচ তারা দেশে গণতন্ত্রের কথা বলেন। পুলিশ আমাদের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নতুন নতুন মামলা দিচ্ছে। তারা আমাদের মহিলা নেত্রীদেরও ছাড় দিচ্ছেন না। বর্তমানে আমাদের বহু নেত্রী জেলে রয়েছেন। সেখানে তাদের থাকার ভালো ব্যবস্থা নেই।

পুলিশ জনগণের অধিকার রক্ষা করতে চায় উল্লেখ করে খালেদা জিয়া বলেন, পুলিশকে এমনভাবে নির্দেশ দেয়া হয়, ব্যবহার করা হয়, ভয় দেখানো হয়; তারা নির্দেশ মানতে বাধ্য হয়। তা না হলে তারা চাকরি হারাবেন।

তিনি আরও বলেন, বিএনপিকে দুর্বল করতে পারলেই আওয়ামী লীগের সুবিধা। এজন্যই প্রশাসনকে ঢালাওভাবে দলীয়করণ করা হয়েছে। কিন্তু আমি বিশ্বাস করি এই প্রশাসনকে সুযোগ দিলে তারা নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দেবে। কারণ তারা এদেশের মানুষ। তারা গণতন্ত্র চায়।

দেশে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন চলছে অভিযোগ করে বিএনপি নেত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে নাকি হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন ভালো থাকবে। কিন্তু এখন তাদের ওপর বেশি নির্যাতন চলছে। হিন্দুদের বাড়িঘর-দোকানপাট দখল করে নিচ্ছে। আসলে আওয়ামী লীগ কোনো ধর্মে বিশ্বাস করে না। তাদের অত্যাচারের শিকার হয়ে সংখ্যালঘুরা আমাদের কাছে অভিযোগ নিয়ে আসছে। তারা বলছেন আমরা নৌকার কাছে আর যাব না, আওয়ামী লীগ আমাদের সবকিছু কেড়ে নিয়েছে।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *